চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বোনাস-বকেয়া ২০ মে’র মধ্যে পরিশোধের দাবি

ঈদের আগে ২০ মে’র মধ্যে শ্রমিকদের সব বকেয়া পাওনা এবং বোনাস পরিশোধের দাবি জানিয়েছে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র (টিইউসি)।

বৃহস্পতিবার গার্মেন্ট টিইউসির সভাপতি শ্রমিকনেতা মন্টু ঘোষ এবং সাধারণ সম্পাদক শ্রমিক নেতা জলি তালুকদার এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান।

বিজ্ঞাপন

বিবৃতিতে তারা বলেন, আগামী ২০ মে’র মধ্যে গার্মেন্ট শ্রমিকদের বেসিকের সমান ঈদ বোনাস, মার্চ ও এপ্রিল মাসের বকেয়া বেতন পরিশোধ করতে হবে। একইসাথে তারা সরকারি সিদ্ধান্ত অনুসারে করোনা মহামারীকালে সব ছাঁটাইকৃত শ্রমিককে পুনর্বহাল, শ্রমিকের স্বাস্থ্যগত নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং কর্মরত অবস্থায় করোনা সংক্রমিত হলে সুচিকিৎসা ও উপযুক্ত আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি জানান।

বিজ্ঞাপন

চলমান মহামারী পরিস্থিতির আঘাতে নিম্ন আয়ের মানুষের জীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। এই অবস্থায় জরুরী ভিত্তিতে শ্রমিকদের আইনসঙ্গত পাওনা পরিশোধ করা না হলে শ্রমিকদের জীবন বাঁচানো সম্ভব হবেনা বলে মনে করেন তারা।

বিজ্ঞাপন

শ্রমিক নেতারা বলেন, গার্মেন্ট টিইউসিসহ অন্যান্য শ্রমিক সংগঠন বছরের পর বছর শ্রমিকদের জন্য রেশন ও বাসস্থানের দাবিতে আন্দোলন করে আসছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত শ্রমিকদের জন্য রেশন-বাসস্থান কিংবা অন্য কোন ধরণের সামাজিক নিরাপত্তার ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়নি। ফলে বেতন-ভাতাই দেশের শ্রমিকের বেঁচে থাকার একমাত্র অবলম্বন। এমতাবস্থায় চলমান করোনা মহামারী পরিস্থিতিতে শ্রমিকের হাতে অর্থ না পৌঁছালে তাদের বাড়ি ভাড়া এবং খাদ্য ব্যয় যোগান দেয়া সম্ভব হবে না। ফলে দেশের প্রায় ৮০ ভাগ রপ্তানী আয় করা গার্মেন্ট শিল্পের দক্ষ শ্রমশক্তি দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতির শিকার হবে।

শ্রমিক নেতাদের হুঁশিয়ারি, সামগ্রিক অর্থনীতির বিবেচনায় সমাজের ৭০ ভাগ নিম্ন আয়ের মানুষের হাতে এই মুহূর্তে টাকা পৌঁছানো সম্ভব না হলে এই বৈশ্বিক মহাবিপর্যয়ের সময়ে তার চরম মূল্য দিতে হবে; যা ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ পরিস্থিতির দিকেও গড়াতে পারে। তাই মানুষকে বাঁচাতে হলে, নিম্ন আয়ের মানুষের আয় কাটার নীতি থেকে এখনই সরকারকে সরে আসতে হবে।

শ্রমিকের ঈদ বোনাস প্রসঙ্গে আজ শ্রম মন্ত্রণালয়ের ডাকা ত্রিপক্ষীয় (শ্রমিক প্রতিনিধি, মালিক ও শ্রম মন্ত্রণালয়) সভায় গার্মেন্ট টিইউসিসহ অন্যান্য শ্রমিক সংগঠনগুলো আইন অনুসারে বেসিকের সমান ঈদ বোনাস পরিশোধের দাবি তুলে ধরেন। কিন্তু মালিকপক্ষ সে অনুসারে বোনাস পরিশোধে অপারগতা প্রকাশ করে।

এ প্রেক্ষিতে ২০ মে’র মধ্যে বেসিকের সমান ঈদ বোনাস, মার্চ ও এপ্রিলের বকেয়া বেতন পরিশোধসহ অন্যান্য দাবিতে ১৫ মে শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছে সংগঠনটি।