চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বার্টনকে গোলের মালা পরিয়ে ম্যানসিটির রেকর্ড বন্যা

ইংলিশ লিগ কাপ বা কারাবাও কাপে একপেশে জয় পেয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। প্রিমিয়ার লিগে লিভারপুলকে হারানোর পর এফএ কাপে গত ম্যাচে ৭-০ গোলে জয়। এরপর কারাবাও কাপের সেমিফাইনালে গার্দিওলার দল জিতল ৯-০ গোলে। বুধবার রাতে দলের হয়ে একাই চার গোল করেছেন গ্যাব্রিয়েল জেসাস। প্রথম লেগ জিতে ফাইনালে একরকম পা দিয়েই রাখল সিটিজেনরা।

জেসাসের চার গোলের সঙ্গে ঘরের মাঠ ইতিহাদে স্কোরশিটে নাম লিখিয়েছেন কেভিন ডি ব্রুইন, আলেকজান্ডার জিনচেঙ্কো, ফিল ফোডেন, কাইল ওয়ালকার এবং রিয়াদ মাহারেজ।

খেলার পাঁচ মিনিটে প্রথম গোল করে শুরুটা করেন ডি ব্রুইন। এরপর ৩০ থেকে ৩৪ -এই চার মিনিটের ব্যবধানে দুই গোল করেন জেসাস। ৩৭ মিনিটে হালি পূর্ণ করেন জিনচেঙ্কো।

প্রথমার্ধের চার গোলের লিড নিয়ে মাঠে নেমে দ্বিতীয়ার্ধের ৫৭ মিনিটে আবার গোল করেন জেসাস। ৬২ মিনিটে ফোডেন ৬-০ করার পর ৬৫ মিনিটে নিজের চতুর্থ গোল করেন ব্রাজিলিয়ান তারকা জেসাস। ৭০ মিনিটে ওয়ালকার এবং ৮৩ মিনিটে শেষ পেরেক ঠোকেন মাহারেজ।

ইংলিশ এফএ কাপের ইতিহাসে সেমিতে এই প্রথম ৯-০ গোলের জয় সর্বোচ্চ ব্যবধানের জয়। তাছাড়া ১৮৭১-৭২ মৌসুমে এফএ কাপের ম্যাচে এমন ফলাফলের পর এই প্রথম এতো বড় জয় এলো।

Advertisement

গত দুই ম্যাচে ম্যানচেস্টার সিটির জন্য গোল করাটা অনেক সহজই ছিল। এফএ কাপের তৃতীয় রাউন্ডে রদারহ্যামকে আগের ম্যাচে ৭-০ গোলে হারায় গার্দিওলার শিষ্যরা।

টানা দুই ম্যাচে ৭ বা তার বেশি গোল করে ৫১ বছরের একটি রেকর্ডও স্পর্শ করেছে ম্যানসিটি। ১৯৬৭ সালে লিডস ইউনাইটেড সাপোরা লুক্সেমবার্গকে ৯-০ গোলে হারানোর আগে চেলসিকে হারিয়েছিল ৭-০ গোলে।

কোচ হিসেবে এটি গার্দিওলার জন্য যৌথভাবে সর্বোচ্চ বড় জয়। এর আগেরটি ছিল ২০১১ সালে, বার্সেলোনার হয়ে। সেই ম্যাচে লা’হসপিটালেটকে ৯-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছিল মেসি-ইনিয়েস্তারা।

১৯৮৭ সালের পর প্রথমবারের মতো ৯ গোল করল ম্যানসিটি। ওই বছর হার্ডার্সফিল্ড টাউনকে দ্বিতীয় লেগের ম্যাচে ১০-১ গোলে হারিয়েছিল তারা।

দুর্ভাগ্যবশত বার্টনের জন্য এমন কঠিন সময়টা শেষ হয়ে যায়নি। দ্বিতীয় লেগের ম্যাচে দুদল আবার মুখোমুখি হবে আগামী ২৩ জানুয়ারি, যখন আরও রেকর্ডের পথ খুলে যেতে পারে।