চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বাংলা চলচ্চিত্রে সুদিন ফিরবেই: চ্যানেল আইয়ে প্রযোজক নেতারা

চলচ্চিত্রের সুদিন ফিরিয়ে আনতে চ্যানেল আইকে পাশে চান নব নির্বাচিত বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতির নেতারা…

দুঃসময় পার করছে বাংলা চলচ্চিত্র। যোগ্য নেতৃত্বের অভাব ও নিয়মিত প্রযোজকদের হারানোয় চলচ্চিত্রের এই সংকটাপন্ন অবস্থা। তবে কিছুটা স্বস্তি এনে দিয়েছে চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশকদের সদ্য অনুষ্ঠিত নির্বাচন।

প্রায় ৭ বছর পর বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো শনিবার (২৭ জুলাই)। বহুল প্রতীক্ষিত এই নির্বাচনে জয়ী প্রযোজকরা সোমবার দুপুরে এসেছিলেন চ্যানেল আই কার্যালয়ে, অংশ নিয়েছেন চ্যানেল আইয়ের নিয়মিত আয়োজন ‘তারকা কথন’-এ। সেখানে তারা আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে জানিয়েছেন, বাংলা চলচ্চিত্রে এবার সুদিন ফিরবেই!

রাজু আলীমের প্রযোজনায় এই তারকা শো শেষ করে নির্বাচিত প্রযোজক নেতারা সাক্ষাৎ করেন ইমপ্রেস টেলিফিল্ম ও চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগরের সঙ্গে। বাংলাদেশের চলচ্চিত্র নির্মাণে বিশেষ অবদান রাখায় চ্যানেল আই ও ইমপ্রেস টেলিফিল্মের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তারা।

ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয় নির্বাচিতদের। এরপর বিজয়ীদের নিয়ে কেট কাটা হয়।

সেখানে নির্বাচিত প্রযোজকদের উদ্দেশ্যে ফরিদুর রেজা সাগর বলেন, বরাবরের মতো চ্যানেল আই নির্বাচিত প্রযোজকদের পাশে থাকবে। আশা করবো, নতুন প্রযোজকরাও আমাদের পাশে থাকবেন। নতুন নেতৃত্বের হাত ধরে দেশীয় চলচ্চিত্রের সমৃদ্ধি কামনা করছি।

প্রযোজকদের নির্বাচনে সর্বোচ্চ ভোট (১২১) পেয়েছেন খোরশেদ আলম খসরু। কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তিনি বলেন, একটি চক্র এতদিন নির্বাচন বন্ধ রেখেছিল। সবকিছু অতিক্রম করে সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে শুরু থেকেই চ্যানেল আই পাশে ছিল। এজন্য নব নির্বাচিত প্রযোজকদের তরফ থেকে চ্যানেল আইয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আগামীতে সবসময় সব কাজে চ্যানেল আইকে পাশে চাই।

বিজ্ঞাপন

অভিনেতা ও সদ্য বিজয়ী প্রযোজক নেতা শহীদুল আলম সাচ্চুর সঞ্চালনায় এসময় নিজেদের অনুভূতি এবং ভবিষ্যত কাজের পরিকল্পনা জানিয়ে কথা বলেন বেশ কয়েকজন প্রযোজক নেতা।

এরমধ্যে প্রযোজক মো. হোসেন বলেন, দেশের চলচ্চিত্রকে মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে চ্যানেল আই ও ইমপ্রেস টেলিফিল্ম শুরু থেকেই প্রশংসিত। সুস্থধারার ছবি নির্মাণে তারা অনবদ্ধ ভূমিকা রেখে চলেছেন। এই ধারাবাহিকতা চ্যানেল আই বজায় রাখুক এবং ছবির মার্কেটিংয়ে ভূমিকা রাখুক।

নির্বাচিত প্রযোজক এমডি ইকবাল বলেন, চলচ্চিত্রের মানুষদের জন্য চ্যানেল আই যেভাবে কাজ করে এবং ব্যক্তিগতভাবে আমাদের কাজগুলো যেভাবে প্রমোট করে তেমন সহায়তা আমরা আর কোথাও পাই না। সবসময় বিপদে চ্যানেল আইকে পেয়েছি, আগামীতেও পাশে চাই।

এসময় চ্যানেল আইয়ের পরিচালক (বিক্রয় ও বিপণন) ইবনে হাসান খান বলেন, চলচ্চিত্রে অনেক সমস্যা বিরাজমান। নতুন নেতৃত্বের মাধ্যমে এগুলো আগে দূর করতে হবে। ছবি নির্মাণের পরিবেশ তৈরি করতে হবে। এতে যদি চ্যানেল আইকে প্রয়োজন হয় আমরা পাশে থাকবো।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক কার্যনির্বাহী পরিষদের ২০১৯-২১ মেয়াদী নির্বাচনে ১৯ সাধারণ সদস্য পদের বিপরীতে প্রার্থী হয়েছিলেন ৪১ জন। মোট ভোটার ছিলেন ১৪১ জন। নির্বাচন কমিশনার জানায়, এবার ভোট কাস্টিং হয়েছে ১৩৪টি।

নির্বাচিত হয়েছেন যারা তারা হলেন খোরশেদ আলম খসরু, সামসুল আলম, ইস্পাহানী, কামাল মোহাম্মাদ লিপু, মেহেদী হাসান সিদ্দিকী মনির, মোর্শেদ খান হিমেল, রশীদুল আমিন হলি, জাহিদ হোসেন, এ. জে. রানা, মোহাম্মদ হোসেন, ইয়ামিন হক ববি, কামাল লিপু, অপূর্ব রানা, নাদির খান, শহিদুল আলম, ইকবাল হোসেন জয়, ইলা, ড্যানি সিডাক ও আলিমুল্লাহ খোকন।

নির্বাচিত এসব প্রযোজকদের মধ্য থেকে মঙ্গলবার (২৯ জুলাই) নির্ধারিত হবে কে হবেন সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক কিংবা বিভিন্ন পদের ১০ জনের মূল কমিটি।

বিজ্ঞাপন