চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বর্তমানের জালে সাবেক চ্যাম্পিয়নদের এক হালি গোল

উড়ন্ত জয়ে শেখ কামাল টুর্নামেন্টের পর্দা তুলল চট্টগ্রাম আবাহনী

চট্টগ্রাম থেকে: টুর্নামেন্টের বর্তমান বনাম সাবেক চ্যাম্পিয়নের ম্যাচ। তাতে হালে পানি পেল না বর্তমান চ্যাম্পিয়ন টিসি স্পোর্টস। মালদ্বীপের ক্লাবটিকে ৪-১ গোলে ডুবিয়ে শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ টুর্নামেন্টের তৃতীয় আসরের পর্দা তুলল ২০১৫ সালের চ্যাম্পিয়ন চট্টগ্রাম আবাহনী।

বন্দরনগরী চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে শনিবার প্রথম ম্যাচের আগে টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। নামমাত্র এক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে উদ্বোধনী পর্ব সারা হলেও মাঠে উপস্থিত পাঁচ হাজার দর্শককে মন খারাপ করতে দেননি চট্টগ্রামের খেলোয়াড়রা। খেলার শুরু থেকেই আধিপত্য বিস্তার করে ছড়ি ঘুরিয়েছে স্বাগতিকরা।

বিজ্ঞাপন

ম্যাচের চতুর্থ মিনিটে স্বাগতিকদের এগিয়ে নেয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন ইয়াসিন আরাফাত। তবে ডি-বক্সের বাইরে থেকে শটে চট্টগ্রামের এ ডিফেন্ডার বল পাঠান বাইরে।

তবে অষ্টম মিনিটেই কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা পায় চট্টগ্রাম। ডি-বক্সের বামপ্রান্ত দিয়ে আরিফুল ইসলামের কাটব্যাক থেকে জোরাল শটে বল জালে জড়ান চিন্দুমা ম্যাথিউ।

বিজ্ঞাপন

দশম মিনিটে দর্শনীয় এক শটে ব্যবধান ২-০ করেন ইয়াসিন আরাফাত। একক নৈপুণ্যে মাঝমাঠে বল টেনে নিয়েছিলেন। পরে ডি-বক্সের বামপ্রান্তের বাইরে থেকে রংধনুর মতো বাঁকানো এক শটে মালদ্বীপ গোলরক্ষক ইব্রাহিম আদমের মাথার উপর দিয়ে বল জালে জড়ান চট্টগ্রামের ১৬ বছর বয়সী ডিফেন্ডার।

পরে ২৯ মিনিটে ব্যবধান কমানোর সুযোগ পেয়েছিলেন মোহাম্মদ সামির। ২৫ গজ দূর থেকে নেয়া টিসি স্পোর্টসের এ খেলোয়াড়ের শট অল্পের জন্য খুঁজে পায়নি লক্ষ্য। পরের মিনিটে গোলরক্ষককে একা পেয়েও সুযোগ কাজে লাগানো হয়নি চট্টগ্রামের ফরোয়ার্ড রোতকোভিচ লুকার।

ম্যাচের ৩৯ মিনিটে স্বাগতিক দর্শকদের তৃতীয়বারের মতো উল্লাসে ভাসান চিন্দুমা ম্যাথিউ। টিসির দুর্বল বাম রক্ষণকে কাজে লাগিয়ে ডি-বক্সে বল পান এ মিডফিল্ডার। পাস দেন আরিফুলকে। আরিফ বল ধরে রাখেননি, ক্রস করেছিলেন ম্যাথিউয়ের দিকে। পেয়েই দেরি করেননি, দারুণ এক ভলিতে বল জড়িয়ে দেন জালে।

আর ৭১ মিনিটে মালদ্বীপ গোলরক্ষকের ভুলে চট্টগ্রামকে চতুর্থ গোল উপহার দেন রোতকোভিচ লুকা। ডি-বক্সের ডানপ্রান্তের বাইরে থেকে লুকার দিকে বল উড়িয়ে দিয়েছিলেন আরিফুল ইসলাম। মালদ্বীপ গোলরক্ষক বেড়িয়ে এসে চেয়েছিলেন বল গ্রিপ করতে। তার পিচ্ছিল গ্লাভস গলে বল গিয়ে পড়ে ঠিক লুকার পায়েই। সুযোগ লুফে নিতে দেরি করেননি মন্টেনেগ্রোর ফরোয়ার্ড। আলতো শটে পূর্ণ করেন গোলের হালি।

খেলা শেষ হওয়ার দুই মিনিট আগে টিসির সান্ত্বনার গোলটি আনেন ইসমাইল ইয়াসা।

Bellow Post-Green View