চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ফেরাটা জয়ে রাঙাল বাংলাদেশ

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার ম্যাচ জয়ে রাঙিয়েছে বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৬ উইকেটে হারিয়ে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে (১-০) এগিয়ে গেল তামিম ইকবালের দল।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ-১২২/১০ (৩২.২ ওভার), বাংলাদেশ-১২৫/৪ (৩৩.৫ ওভার)

বিজ্ঞাপন

মিরপুরের ২২ গজে ছোট লক্ষ্যে ধীরলয়ে এগিয়েও হারাতে হয়েছে ৪ উইকেট। কিছুটা ধুঁকতে হয়েছে বাংলাদেশ ব্যাটসম্যানদের।

উইন্ডিজকে মাত্র ১২২ রানে অলআউট করে টিম টাইগার্স জয়ের কাজটা অনেকটা নিশ্চিত করে ফেলেছিল বল হাতেই। সহজ লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে জয়ের পথে হাঁটতে থাকতে হয়েছে সতর্ক।

অধিনায়ক তামিম করেছেন সর্বোচ্চ ৪৪ রান। মুশফিকুর রহিম ১৯ ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ৯ রানে অপরাজিত থেকে ৯৭ বল হাতে রেখেই বাংলাদেশকে জয়ের বন্দরে নোঙর করান।

ক্যারিবিয়ান বোলারদের মধ্যে আকিল হোসেনকে খেলতে সংগ্রাম করতে হয়েছে স্বাগতিক ব্যাটসম্যানদের। এ বাঁহাতি স্পিনার ১০ ওভারে মাত্র ২৬ রান দিয়ে তুলে নেন ৩ উইকেট।

বিজ্ঞাপন

দারুণ ঘূর্ণিতে লিটন দাসকে (১৪) বোল্ড করার পর তুলে নেন নাজমুল হোসেন শান্তর (১) উইকেট। নিজের শেষ ওভারের শেষ বলে বোল্ড করেন সাকিব আল হাসানকে (১৯)। একটি উইকেট নিয়েছেন উইন্ডিজ অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদ।

শীর্ষ ক্রিকেটারদের ছাড়াই বাংলাদেশে আসা উইন্ডিজের ছয় ক্রিকেটার এদিন পান ওয়ানডে ক্যাপ। অনভিজ্ঞ দলটির ব্যাটসম্যানদের মিরপুরে অসহায় বানিয়ে উইকেট দখলের উৎসবে মাতেন মোস্তাফিজ-সাকিব।

ওয়ানডে অভিষেক ঘটা হাসান মাহমুদ ঝলক দেখান একটু দেরিতে। হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগানো তরুণ পেসার তুলে নেন ৩ উইকেট। ৩২.২ ওভারে থামে উইন্ডিজ ইনিংস। সর্বোচ্চ ৪০ রান করে যান কাইল মেয়ার্স।

২০১৯ বিশ্বকাপের পর ওয়ানডে খেলতে নামা সাকিব তুলে নেন ৪ উইকেট। ৭.২ ওভারে দিয়েছেন মাত্র ৮ রান। মোস্তুাফিজুর রহমান নেন ২ উইকেট। মেহেদী হাসান মিরাজ নিয়েছেন একটি উইকেট।

প্রায় একবছর পর খেলতে নামা বাংলাদেশের জন্য এটি ছিল বিশ্বকাপ সুপার লিগের প্রথম ম্যাচ। ২০২৩ বিশ্বকাপে সরাসরি খেলতে হলে আগামী দুই বছর মেয়াদে পয়েন্ট টেবিলে সেরা আটের মধ্যে থাকতে হবে। সেই অভিযানের শুরুটা হল জয় দিয়ে।