চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পূজায় ব্যস্ত, করোনাকালেও গান বন্ধ করেননি হৈমন্তী

পূজায় হৈমন্তী রক্ষিতের দুই গান:

২৫ অক্টোবর চ্যানেল আইতে পূজার অনুষ্ঠান ‘নয়ন ভুলানো এলে’তে সংগীত পরিবেশন করবেন হৈমন্তী রক্ষিত

গানের হৈমন্তী মানেই হৈমন্তী শুক্লা! বাঙালি শ্রোতা মাত্রই এমন ইমেজ দীর্ঘদিনের। কিংবদন্তী এই শিল্পীর নামের প্রতি ভালোবাসা আর প্রবল শ্রদ্ধাভক্তি থেকে চট্টগ্রামের এক পরিবারে একই ডাকনামে বড় হতে থাকেন আরেকজন হৈমন্তী! তখন কে জানতো, এই হৈমন্তীও একদিন শিল্পী হয়ে উঠবেন!

বলছি এই সময়ের বাংলা গানের শিল্পী হৈমন্তী রক্ষিতের কথা। পারিবারিক পরিমন্ডলে থেকেও গানের পরিবেশ তাকে সত্যি সত্যিই শিল্পী হিসেবে পরিচিতি এনে দিয়েছে। তবে তিনি প্রথম সবার দৃষ্টি কাড়েন ১৯৯৩ সালে, যখন নজরুল সংগীত গেয়ে নতুন কুঁড়িতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন।

বিজ্ঞাপন

গানের প্রতি প্রবল ভালোবাসা আর নিষ্ঠার প্রতিদান তিনি পেয়েছেন হাতেনাতে। আর সেটা শ্রোতা দর্শকের ভালোবাসা। বিত্তবৈভব কিংবা নামের জন্য কখনোই গানের পিছু নেননি তিনি, বরং ভালো গান গাওয়ার জন্য তিনি নিজের কাছেই যেন দায়বদ্ধ। তার সমস্ত তৃষ্ণা ভালো গানের জন্য!

প্রসঙ্গক্রমে এই শিল্পী বললেন, ‘এই করোনাকালেও আমি গান বন্ধ করিনি। কোনো ব্রেক নেইনি। বেশ কয়েকটি গান করেছি এইসময়ে। এরমধ্যে আমার নিজের ইউটিউব চ্যানেলের জন্য মৌলিক কিছু গান করলাম। কিছু গান আগে করা ছিলো, সেগুলোর ভিডিও শুট করলাম। বলা যায়, এই সময়ে নানা কারণে ব্যস্ততা আরো ডাবল হয়ে গেছে।’

পূজা উপলক্ষ্যে নিজের ব্যস্ততার কথা জানিয়ে এই শিল্পী জানান, এবারের পূজায় আমার দুটি গান রিলিজ হচ্ছে। এরমধ্যে ‘দুর্গতিনাশিনী’ নামের একটি গান প্রায় দুদিন হলো রিলিজ হয়েছে কলকাতার দাপুটে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এসকে মুভিজ এর ইউটিউব চ্যানেল থেকে। সবাই এই গানের জন্য খুব অ্যাপ্রিসিয়েট করছেন।

চ্যানেল আইয়ের পূজার অনুষ্ঠানেও এই গানটিই করছেন জানিয়ে হৈমন্তী বলেন, নবমীর রাতে (২৫ অক্টোবর) মুনিম ইফতেখার ভাইয়ের প্রযোজনায় চ্যানেল আইয়ে পূজার যে অনুষ্ঠানটি হবে, সেখানে দুর্গতিনাশিনী নামের গানটি আমি করবো। মুনিম ভাই এই গানটির জন্য এতো দারুণভাবে কোরিওগ্রাফি করিয়েছেন, যে কেউ দেখলে মুগ্ধ হয়ে যাবেন।

প্রতি পূজায় একটি গান করলেও এবার কেন দুটো, সে কারণও জানালেন হৈমন্তী। বললেন, প্রতি বছর পূজাতে আমার একটি গান প্রকাশ পায়। ২০১৮ সালে এসকে মুভিজের চ্যানেলে ‘বছর বছর আসতে হবে তোমায় দূর্গা মা’ গানটি রিলিজের পর ব্যাপক সাড়া পরে। এর পরের বছর এসভিএফ একটি গানের প্রস্তাব করে, গত বছর সেটা করি। এবার আমার শুধু সলো গান ‘দুর্গতিনাশিনী’ করার পরিকল্পনা ছিলো। কিন্তু এবার একজন গীতিকার আমাদের প্রস্তাব করেন যে, উনার একটি পূজার গান রেডি আছে আমরা যেন সেটা করি। তিনি শর্ত দিলেন ২০১৮ সালে এসকে মুভিজের জন্য আমি আর আকাশ সেন যেভাবে সেই গানটা করেছিলাম, এই গানটিও যেন আমরা করে দেই। শেষ পর্যন্ত ‘পূজো এলো’ নামে গানটি করলাম।

কলকাতার শিল্পী আকাশ সেনের সাথে ‘পূজো এলো’ শিরোনামে ডুয়েট এই গানটির কথা লিখেছেন প্রসেনজিৎ মন্ডল। সুর এবং সংগীতায়োজন করেছেন আপন খান এবং এমএমপি রনি। হৈমন্তী জানান, ডিপি মিউজিক স্টেশনের ব্যানারে এই গানটি এতো দারুণ অ্যারেঞ্জমেন্ট যে, অবাক হয়েছি। গানটি আজকেই ডিপি মিউজিকের ইউটিউবে মুক্তি পাওয়ার কথা।

টিভি অনুষ্ঠান কিংবা চলচ্চিত্রে নিয়মিত গাইলেও ডাকপিয়ন, প্রেমের ছোয়া, স্মৃতির ক্যানভাস, স্বপ্ন দেখি, দেয়াল কাহিনী- ইত্যাদি হৈমন্তীর উল্লেখযোগ্য অ্যালবাম। ঝুলিতে আছে বেশকিছু জনপ্রিয় গানের নামও।