চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পাখি রক্ষায় সবাইকে এক হয়ে কাজ করার আহ্বান

পাখি রক্ষায় সব মহলকে এক হয়ে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞ আর পরিবেশবাদীরা। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে পাখি মেলার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তারা বলেন, শুধু সৌন্দর্য্যরে জন্য নয়, গাছ টিকিয়ে রাখতেও পাখি প্রয়োজন।

রাশিয়ার সাইবেরিয়াসহ শীতের দেশ থেকে এ মৌসুমে উষ্ণতা সন্ধানে হাজার হাজার মাইল পাড়ি দিয়ে ছুটে আসে পরিযায়ী পাখিরা। বাংলাদেশের হাওর, বাওর, নদী, উপকূল আর জলাশয়ে তারা ভিড় করে কয়েক মাসের জন্য। তাদের বড় একটি পছন্দের জায়গা জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের জলাশয়।

দেশী আর পরিযায়ী পাখিকে রক্ষায় সচেতনতা বাড়াতেই এ মেলার আয়োজন। পাখি মেলার আয়োজকরা বলছেন, ১৯৮৬ সালে জাহাঙ্গীনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭৬ প্রজাতির পাখি ছিলো। বর্তমানে ১৯৫ প্রজাতির পাখিতে দাড়িয়েছে।

Advertisement

তাই পাখির প্রতি আরো বেশি দায়িত্বশীল আচরণ করলে সামনে পাখির প্রজাতির সংখ্যা আরো বাড়বে। কারণ পাখি ভালো পরিবেশ ভালো থাকবে আর পরিবেশ ভালো থাকলে আমরা সবাই ভালো থাকবো।

উদ্যোক্তারা আশা প্রকাশ করেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্বাদ্যালয়ের এ মেলার সচেতনতা অন্য অঞ্চলের পাখি রক্ষায়ও ভূমিকা রাখবে। এ প্রসঙ্গে প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়াম্যান মুকিত মজুমদার বাবু বলেন, এই পাখি কিন্তু আমাদের বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে দিচ্ছে বিষ্ঠার মাধ্যমে বীজ। এই বীজগুলো দিয়েই গাছ হচ্ছে এবং তাদের বিষ্ঠা দিয়ে সারও হচ্ছে।

সুতরাং পাখি যে শুধু সৌন্দর্যের পাখি তাই নয় এরসঙ্গে কিন্তু আমাদের জীবনের অনেক কিছু জড়িয়ে আছে। কারণ গাছ না থাকলে কিন্তু আমরা অক্সিজেন পেতাম না। আর অক্সিজেন অভাবে আমাদের অবস্থা চিন্তায় করা  যায় না। পাখি মেলায় পাখির আলোকচিত্র আর পাখি বিষয়ক প্রকাশনার  বিভিন্ন স্টলে ভিড় জমে উৎসাহী সব বয়সী মানুষের।