চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পরিচালক হিসেবে প্রশংসা পাচ্ছেন পলাশ

তাহসান-তিশা জুটিকে নিয়ে পলাশ এই ঈদে নির্মাণ করেছিলেন নাটক ‘একটুখানি’…

অভিনেতা হিসেবে জিয়াউল হক পলাশ ভীষণ জনপ্রিয়। বিশেষ করে কাজল আরেফিন অমির ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ দিয়ে পলাশ আলোচনার তুঙ্গে। এছাড়া যে কোনো নাটকে তার উপস্থিতি মানেই দর্শকদের বাড়তি আগ্রহ।

অভিনেতা হিসেবে পরিচিতি পেলেও পলাশের মনে প্রাণে দুর্বলতা নির্মাণে। সেই ইচ্ছে থেকে ঈদে বানিয়েছেন ‘একটুখানি’ নামে একটি নাটক। এ নাটকটি বানিয়ে পরিচালক হিসেবে প্রশংসা পাচ্ছেন পলাশ।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

অন্তর্জাল জুড়ে পরিচালক পলাশের প্রশংসা! নাটক বান্ধব বিভিন্ন গ্রুপে সমালোচকরাও পরিচালক পলাশের ভূয়সী প্রশংসা করছেন।

‘একটুখানি’ নাটকের প্রধান দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন তাহসান ও তানজিন তিশা। গল্পে দেখা যায়, তারা দুজন ব্যস্ততার কারণে আলাদা থাকেন। হঠাৎ একদিন দুজনের দেখা হওয়ার পর ঘটে কয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা। স্মৃতিকাতর হয়ে পড়েন তারা। আলাদা সম্পর্ক আবার জোড়া লাগে!

বিজ্ঞাপন

ইউটিউবে প্রকাশের দু’দিন না যেতেই ইউটিউব থেকে প্রায় ১০ লাখ দর্শক নাটকটি দেখেছেন। মন্তব্য করেছেন সাড়ে ৪ হাজার। অনেক দর্শক এ নাটকটিকে ঈদের অন্যতম সেরা একটি নাটক হিসেবে অভিহিত করেছেন। এছাড়া হাজারো মন্তব্যে দেখা যায়, পরিচালক পলাশের প্রশংসা ও শতশত উৎসাহ যোগানো মন্তব্য।

একটুখানি পলাশ পরিচালিত চতুর্থ নাটক। এর আগে তিনি ‘ফ্রেন্ডস উইথ বেনিফিটস’, ‘সারপ্রাইজ’, ‘ঘরে ফেরা’ নামে তিনটি নাটক পরিচালনা করেছেন। গেল অক্টোবরে শিল্পী জুনায়েদ ইভানের ‘নিজের জন্য’ নামে একটি মিউজিক ভিডিও পরিচালনা করেছেন পলাশ। পাশাপাশি সাবিলা নূরকে নিয়ে ‘অপো’ মোবাইলের ওভিসিও নির্মাণ করেছিলেন।

‘একটুখানি’ প্রসঙ্গে পলাশ বলেন, এটি খুব সাধারণ গল্প। এই সময়ে মানুষ পছন্দ করবে কিনা কনফিউজড ছিলাম। কিন্তু প্রচারের পর মানুষ এত চমৎকারভাবে পছন্দ করবে ভাবিনি। মানুষের এই ভালোবাসা অপ্রত্যাশিত। দর্শকদের সুন্দর সুন্দর মন্তব্য আমাকে স্পর্শ করছে। পাশাপাশি আমাদের শ্রদ্ধাভাজন কয়েকজন গুণী শিল্পী ফোন করে শুভকামনা জানিয়েছেন, আমি খুবই সারপ্রাইজড হয়েছি!

জিয়াউল হক পলাশ ও কাজল আরেফিন অমির চিত্রনাট্যে ‘একটুখানি’র এক্সকিউটিভ প্রযোজক মাসুদুল হাসান। ঈদে টেলিভিশনে প্রচারের পর নাটকটি দেখা যাচ্ছে ক্লাব ইলাভেন এন্টারটেইনমেন্টের ইউটিউবে। তানসান-তিশা ছাড়াও নাটকে দেখা গেছে শরাফ আহমেদ জীবন ও শিমুল শর্মাকে।