চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নৌ দুর্ঘটনায় জেল-জরিমানা করে প্রথম রায়

প্রায় ৮ বছর পর ২০০৯ সালের নভেম্বরে পবিত্র ঈদুল আজহার একদিন আগে ভোলার লালমোহনের তেঁতুলিয়া নদীতে ঢাকা থেকে লালমোহনগামী যাত্রীবাহী লঞ্চ এমভি কোকো-৪ দুর্ঘটনায় করা মামলার রায় হয়েছে মঙ্গলবার।

নৌ আদালতের দেয়া এ রায়ে নয় আসামীর প্রত্যেককে চার বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি লঞ্চের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান রহমান শিপইয়ার্ড বাংলাদেশ লিমিটেডকে চার লাখ ৮০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণের দণ্ড দেয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

নৌযান দুর্ঘটনায় আসামীদের জেল ও মালিকপক্ষকে জরিমানার দণ্ডাদেশ দিয়ে নৌ আদালতে এ ধরনের রায় এটাই প্রথম।

রায়ের পর এক প্রতিক্রিয়ায় নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আশীষ কুমার দে বলেন, আমি গর্বিত, এই ঐতিহাসিক রায় আমাদের দীর্ঘ আন্দোলনের ফসল। ওই দুর্ঘটনার পর অপরাধীদের শাস্তি দাবিতে বিরামহীন আন্দোলন করতে হয়েছে আমাদের, যাতে স্নায়বিক রক্তক্ষরণ কম হয়নি।

তিনি আরও বলেন, হুমকি-ধমকি ও লোভ-প্রলোভনও কম ছিলো না। তবুও আন্দোলন থেকে পিছু হটিনি। যদিও তদন্তে দুর্বলতা ও পক্ষপাতিত্বের কারণে দু’জন প্রভাবশালী কর্মকর্তা অভিযোগ থেকে রেহাই পেয়ে গেছেন। যারা আজো নৌ পরিবহন অধিদপ্তরে দাপটের সঙ্গে চাকরি করে যাচ্ছেন। তা সত্ত্বেও এ রায় ভবিষ্যতের জন্য অনুকরণীয় হয়ে থাকবে।

Bellow Post-Green View