চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নেইমার ইস্যুতে নিজেদের ‘প্রতারিত’ ভাবছে বার্সা সিনিয়ররা

হবে হবে করেও শেষ পর্যন্ত হয়নি। আপাতত নেইমারের বার্সেলোনায় যাওয়ার আশা পূরণ হয়নি। সোমবার স্পেনের ট্রান্সফার উইন্ডো ক্লজ হয়ে গেছে। ফলে অনিচ্ছা নিয়েও এ মৌসুমে পিএসজি জার্সিতেই খেলতে হবে। অন্তত জানুয়ারির শীতকালীন দলবদল পর্যন্ত তো বটেই।

দিন পনের আগে বার্সেলোনার প্রতিনিধিরা নেইমারের চুক্তি নিয়ে আলোচনা করতে প্যারিসে গেলে খবর বের হয় ব্রাজিল তারকাকে নিয়ে বার্সার এই চেষ্টা আসলে নাটক।

বিজ্ঞাপন

ফরাসি দৈনিক ‘লা প্যারিসিয়ান’ জানায়, নেইমারের ব্যাপারে আসলে যতটা ভাবা হচ্ছে ততটা সিরিয়াস নয় বার্সা। তারা (বার্সা) আসলে মেসিকে খুশি করতে এটা করছে।

দলবদলের সময়সীমা শেষ হওয়ার পরও তেমনই এক খবর প্রকাশিত হয়েছে। স্প্যানিশ দৈনিক মার্কা বলছে, বার্সেলোনা ড্রেসিংরুমের মধ্যে সবকিছু ঠিকঠাক নেই, দলের প্রথম স্কোয়াডের অনেক সদস্য এতটা প্রতিশ্রুতি দেয়া ট্রান্সফার উইন্ডোর পরে প্রতারণা বোধ করছেন।

বার্সেলোনায় একসঙ্গে খেলার সময় থেকেই মেসি-নেইমারের দারুণ বন্ধুত্ব। ব্রাজিলিয়ান তারকা ক্লাব ছেড়ে গেলেও সাবেক সতীর্থের প্রতি ভালোবাসায় ভাটা পড়েনি কারোরই। এখন মেসি চান নেইমার আবার বার্সায় ফিরুক। শুধু মেসি নয়, স্কোয়াডের বেশিরভাগ সদস্য, বিশেষত সিনিয়র খেলোয়াড়রা নেইমারের সম্ভাব্য প্রত্যাবর্তনের পক্ষে ছিলেন।

মেসি, সুয়ারেজ এবং নেইমারের সমন্বয়ে গঠিত ‘এমএসএন’ ত্রিশূলকে আবার একত্রিত করার সম্ভাবনা ছিল। সেটা না হওয়ায় সম্ভাবনাটি একটি ঝাঁকুনি খেল। বার্সা খেলোয়াড়রা ক্লাব প্রেসিডেন্ট জোসেপ মারিয়া বার্তামেউ এবং বোর্ড সদস্যদের নেইমারকে ফিরিয়ে আনতে যতটা করতে পারে তার সবকিছু করতে বলেছিলেন।

বিজ্ঞাপন

‘লা প্যারিসিয়ান’ দাবি করেছিল, নেইমারের জন্য বার্সেলোনার আলোচনার বিষয়টি মেসিকে খুশি করার জন্য তৈরি করা হতে পারে, ব্রাজিলিয়ান তারকাকে দলে ফেরাতে সত্যিকার অর্থেই বার্সা কোনো চেষ্টা করছে না।

মার্কাও তেমনটা দাবি করছে। তারা বলছে, খেলোয়াড়দের অনুভূতি এমন যে, তারা ভাবছে ক্লাব ব্রাজিলিয়ান তারকাকে পুনরায় সই করাতে আগ্রহী ছিল না এবং ক্লাবের পক্ষ থেকে যে প্রস্তাবগুলো দেয়া হয়েছে তা আসলে খেলোয়াড়দের খুশি রাখার উপায় হিসাবে ব্যবহার করা হয়েছে।

নেইমারকে সই করানোর জন্য চুক্তির অংশ হিসাবে যেভাবে তাকে ব্যবহার করার চেষ্টা করেছে ক্লাব, তাতে ক্লাবের প্রতি মোটেই খুশি নন ইভান রাকিটিচ। যদিও মৌসুমের শুরুর সপ্তাহগুলোতে কোচ ভালভার্দে তাকে প্রথম একাদশ থেকে বাইরে রাখার জন্য হতাশা প্রকাশ করেছিলেন। তবে সত্য যে, রাকিটিচ ন্যু ক্যাম্পেই থাকতে চান এবং সে বিষয়ে সম্পূর্ণ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

ইউরোপের মিডিয়া জুড়ে অবশ্য এখন কাটাছেঁড়া চলছে, কেনো নেইমারের সঙ্গে বার্সেলোনার চুক্তি শেষ পর্যন্ত হল না তা নিয়ে। কয়েকটা কারণও উঠে এসেছে। যেমন নেইমারের জন্য ২০ কোটি ইউরোর ট্রান্সফার মূল্য। যা শুধু বার্সেলোনা নয়, পিছিয়ে দিয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদকেও।

শুধু এই ট্রান্সফার মূল্যই নয়, সেইসঙ্গে কয়েকজন ফুটবলারকেও দিতে হতো। যেমন বার্সেলোনা চেয়েছিল ইভান রাকিটিচ, উসমান ডেম্বেলে ও জঁ ক্লেয়ার তোদিবোকে পিএসজিতে পাঠানোর কথা। এক্ষেত্রে নেইমারের বদলি হিসেবে ডেম্বেলের সঙ্গে পিএসজির রফা হয়নি। রাকিটিচ, তোদিবো রাজি হয়ে গিয়েছিলেন পিএসজির প্রস্তাবে।

কিন্তু রাজি ছিলেন না ডেম্বেলে। ফরাসি উঠতি তারকা পিএসজির থেকে যে বেতন দাবি করেছিলেন, তা দেয়া প্যারিসের ক্লাবের পক্ষে সম্ভব ছিল না। মূলত এ জন্যই নেইমারের সঙ্গে বার্সেলোনার চুক্তি সম্ভব হয়নি বলে খবর।

Bellow Post-Green View