চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নির্বাচনী জামানতই বাজেয়াপ্ত তাদের

তিন সিটিতে ছয়জন মেয়র প্রার্থী ছাড়া সবার নির্বাচনী জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। জামানত হারানোর তালিকায় আছেন জাতীয় সংসদে প্রধান বিরোধীদল জাতীয় পার্টি এবং সরকারের শরিক জাসদসহ ডান-বাম সব দলের প্রার্থীরা।

বিজ্ঞাপন

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, নির্বাচনী আইন অনুযায়ী নির্বাচনে যে পরিমাণ ভোট পড়ে তার আট ভাগের এক ভাগ না পেলে প্রার্থীদের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়ে যায়।

বিজ্ঞাপন

ঢাকা দক্ষিণ এবং চট্টগ্রাম সিটিতে ভোটার সংখ্যা ২০ লাখের কম হওয়ায় মেয়র প্রার্থীদের জামানত ছিলো ৫০ হাজার টাকা। আর উত্তরে ভোটার সংখ্যা ২০ লাখের বেশি হওয়ায় এক লাখ টাকা ছিলো জামানতের পরিমাণ।

ঢাকা দক্ষিণে মেয়র প্রার্থী ছিলেন ২০ জন। তাদের মধ্যে বিজয়ী সাঈদ খোকন এবং নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মির্জা আব্বাস ছাড়া বাকি সবার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

জামানত বাজেয়াপ্তদের তালিকায় আছেন জাতীয় পার্টির সাইফুদ্দিন আহমেদ (৪,৪১৯ ভোট), সিপিবি-বাসদ-এর বজলুর রশিদ ফিরোজ (১,০২৯), নির্বাচনী লড়াইয়ে না থাকা বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপন (৯২৮) এবং আওয়ামী লীগ দলীয় সাবেক এমপি এবং টেলিভিশন টক-শোর পরিচিত মুখ গোলাম মাওলা রনি (১,৮৮৭ ভোট)।

জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়া প্রসঙ্গে গোলাম মাওলা রনি চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, তিনি নিজেকে জনগণের অভিভাবক হওয়ার যোগ্য মনে করেছিলেন। কিন্তু জনগণ তা মনে করেনি। ফলে জনগণের রায় তিনি মেনে নিয়েছেন এবং জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়া নিয়ে তার কোনো দুঃখবোধ নেই।

রনির মতোই টক-শোর পরিচিত মুখ গণসংহতি আন্দোলনের জোনায়েদ আবদুর রহিম সাকিও জামানত হারিয়েছেন। তিনি অবশ্য রনির মতো ভোটের ফল মেনে নিতে পারছেন না।

জোনায়েদ সাকি বলেছেন, এ নির্বাচনে জনগণের ভোটের অধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছে। কোনো নির্বাচনী কেন্দ্রে সরকারি দল ছাড়া অন্য কাউকে থাকতে দেয়া হয়নি। সম্পূর্ণ সাজানো একটা নির্বাচন যেটা তারা প্রত্যাখান করেছেন।

সাকির দাবি, তাদের পক্ষে বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত যে ভোট পড়েছে তা গণনাই হয়নি। ফলে তারা এ নির্বাচন মেনে নেননি এবং জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়া নিয়েও তাদের কোনো কথা নেই।

সাত হাজার ৩৭০ ভোট পেয়ে ঢাকা উত্তরে জামানত হারানো সাকি ছাড়াও এ তালিকায় আছেন বিকল্পধারার মাহী বি চৌধুরী (১৩,৪০৭),  জাতীয় পার্টির বাহাউদ্দিন আহমেদ বাবুল (২,৯৫০), সিপিবি-বাসদ-এর আবদুল্লাহ আল ক্বাফী রতন (২,৪৭৫) এবং জাসদ-এর নাদের চৌধুরী (১,০৪১ ভোট)।

দক্ষিণের মতো ঢাকা উত্তর এবং চট্টগ্রামেও শুধু বিজয়ী এবং নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছাড়া আর সবাই জামানত হারিয়েছেন। উত্তরে জামানত হারিয়েছেন ১৪ মেয়র প্রার্থী অার চট্টগ্রামে জাতীয় পার্টির মো. সোলায়মান আলম শেঠ (৬,১৩১ ভোট) সহ ১০ জন।