চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা দিবসে নর্থ কোরিয়ার মিসাইল উপহার

প্রথমবারের মতো আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালিয়েছে নর্থ কোরিয়া। আর এই ক্ষেপণাস্ত্রটি যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা দিবসে নর্থ কোরিয়ার উপহার হিসেবে ঘোষণা করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট কিম জং উন। নর্থ কোরিয়ার কেন্দ্রীয় সংবাদ সংস্থা (কেসিএনএ) এই তথ্য জানিয়েছে।

কেসিএনএ জানায়, ৪ জুলাই আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক মিসাইলের (আইসিবিএম) পরীক্ষা চালানো পর্যবেক্ষণ করছিলেন প্রেসিডেন্ট কিম জং উন। এসময় তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র নিশ্চই তাদের স্বাধীনতা দিবসে এই উপহার পেয়ে খুশি হবে না।’

বিজ্ঞাপন

উচ্চস্বরে হেসে প্রেসিডেন্ট উন আরও বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের বিরক্তিভাব দুর করতে আমাদের উচিত আরও উপহার দেয়া।’ মিসাইলটি পরীক্ষার পর তিনি সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন।

মিসাইল
মিসাইল উৎক্ষেপন পর্যবেক্ষণ করছেন কিম জং উন

বিজ্ঞাপন

হুয়াসং-১৪ জাতীয় মিসাইলটি পরীক্ষার মধ্যদিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের আলাস্কায় আঘাত হানার সক্ষমতা অর্জন করলো নর্থ কোরিয়া। যুক্তরাষ্ট্রও এ কথা স্বীকার করে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। আজ তারা নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠকও ডেকেছে।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সকাল ৯.৪০ মিনিটে (বাংলাদেশ সময় ভোর ৬.৪০) দেশটির নর্থ পিয়ংগান প্রদেশের বাংহিয়ন এলাকা থেকে ক্ষেপণাস্ত্রটি ছোঁড়া হয়। নর্থ কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় টিভি চ্যানেলে এক ঘোষণায় ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

উৎক্ষেপণের প্রায় ৪০ মিনিট পর ৯৩৩ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে জাপান সাগরে অবস্থিত জাপানের সংরক্ষিত অর্থনৈতিক অঞ্চলের ভেতর গিয়ে পড়ে বলে ইয়নহ্যাপ সংবাদ সংস্থাকে জানায় সাউথ কোরীয় সেনাবাহিনী। নর্থ কোরিয়াও পরে তা-ই জানায়।

এটি চলতি বছরে নর্থ কোরিয়ার ১১তম নিশ্চিত মিসাইল উৎক্ষেপণ। তবে আগেরগুলোর তুলনায় এবারের মিসাইলটি অনেক বেশি দূরপাল্লার বলে জানিয়েছে বিবিসি। প্রতিবার নর্থ কোরিয়া তাদের ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতের পরিসর বাড়িয়ে এসেছে, যা যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানসহ বিশ্বনেতাদের দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।