চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও জঙ্গি দমনে’ উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের তাগিদ

‘দুর্নীতি দমন কমিশনে দুর্নীতি নাই সেটা বলতে পারবো না’

‘দুর্নীতি সন্ত্রাস ও জঙ্গি দমনে’ উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারে দক্ষতা বৃদ্ধির তাগিদ দিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মোহা.শফিকুল ইসলাম। 

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) কর্মকর্তা এবং ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের সমন্বয়ে যৌথ বিশেষায়িত তদন্ত অনুসন্ধান কোর্সের  উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রোববার ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সপ্তাহব্যাপী যৌথ প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন করা হয়।

ডিএমপি কমিশনার বলেন মোহা. শফিকুল ইসলাম বলেন, দুর্নীতি সন্ত্রাস ও জঙ্গি দমন করা গেলে দেশের অনেক উন্নয়ন হবে। উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে দক্ষতাবৃদ্ধি করতে প্রশিক্ষণার্থীদের তাগিদ দেন তিনি।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, প্রযুক্তিগত বিষয় নিয়ে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। সাধারণ অপরাধগুলোর মধ্যেও প্রযুক্তিগত বিষয় নিয়ে কাজ করতে হয়। প্রযুক্তি সব সময় পরিবর্তন হয়। তাই যারা প্রশিক্ষণ গ্রহণ করবেন তারা সেগুলোর সঙ্গে আপডেট থাকবেন। লোভে পড়লে শুধুমাত্র অর্থ উপার্জন সম্ভব আর লোভে না পড়লে দেশের সব অর্জন সম্ভব। এসময় তিনি তদন্তের স্বার্থে কাউন্টার টেররিজমের এক্সপার্ট অফিসারদের সঙ্গে দুদক কর্মকর্তাদের সুসম্পর্ক স্থাপন করে ভবিষ্যতে দেশের কল্যাণে কাজ করার অনুরোধ জানান।

বিজ্ঞাপন

প্রধান অতিথির বক্তব্যে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, তদন্তকাজ ঠিক মতো যদি না হয় তাহলে অপরাধীরা সব সময় ধরা ছোঁয়ার বাইরে থেকে যায়। তাই যারা এ নিয়ে কাজ করবেন তাদের সবসময় আপডেট থাকতে হবে। সমালোচনা সব সময় সাদরে গ্রহণ করতে হবে। যদি সমালোচনা থাকে তাহলে জবাবদিহিতা থাকে।

তিনি বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনে দুর্নীতি নেই সেটা বলতে পারবো না। দুর্নীতি যেমন আছে সেখানে জবাবদিহিতাও রয়েছে। তাই কমিটমেন্ট অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। দুর্নীতির আগে যদি সেটা ধরতে পারি সেটাই হবে আসল উদ্দেশ্য। দুর্নীতি যদি ঘটেই যায় তাহলে আমাদের থাকার উদ্দেশ্য কী? তাই আগে থেকে দুর্নীতি ধরতে আমাদের সোচ্চার হতে হবে।

এসময় সিটিটিসি প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, সিটিটিসির কর্মকর্তারা শুধু দেশি-বিদেশি নয়, ইন-হাউজ ট্রেনিং করছে। কাউন্টার টেররিজম কোনো ট্রেনিং ইন্সটিটিউট না হলেও আমাদের অফিসাররা প্রতি মাসেই কোনো না কোনো ওয়ার্কশপ সেমিনার শর্ট ট্রেনিংয়ের মাধ্যমে তরুণ অফিসার ও কর্মরতদের দক্ষতা বৃদ্ধির চেষ্টা করছি। আমরা সবাই বাংলাদেশ পুলিশের সদস্য। চাকরি জীবনের প্রথম থেকেই আমরা তদন্ত করে এসেছি। আশা করছি এই প্রশিক্ষণটি ফলপ্রসূ হবে।

শেয়ার করুন: