চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

তৃতীয় দফায় দ্বিতীয় দিনে সাড়ে ৯শ রোহিঙ্গা ভাসানচর যাচ্ছে

কক্সবাজারের আশ্রয়কেন্দ্র থেকে নোয়াখালীর ভাসানচর পাঠাতে চট্টগ্রামের উদ্দেশে তৃতীয় দফার দ্বিতীয়দিনে রোহিঙ্গাদের বহনকারি ১৮ টি বাস ছেড়েছে; এতে অন্তত সাড়ে ৯ শত জন রোহিঙ্গা রয়েছে।

শুক্রবার দুপুর পৌনে ১ টায় উখিয়া ডিগ্রী কলেজ মাঠ থেকে এসব বাস রওনা হয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা।

তবে চট্টগ্রামের উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া এসব বাসে কি পরিমান রোহিঙ্গা রয়েছে তা তারা জানাতে পারেননি।

কিন্তু তৃতীয় দফায় রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরের ব্যাপারে বরাবরের মত এবারও শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ের সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে আনুষ্ঠানিক কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

স্থানীয়রা ধারণা করছেন, চট্টগ্রামের উদ্দ্যেশে ছেড়ে যাওয়া এসব বাসে অন্তত সাড়ে ৯ শত জন রোহিঙ্গা রয়েছে।

রোহিঙ্গাদের বহনকারি বাসগুলোর সামনে ও পেছনে র‌্যাব, পুলিশসহ আইন-শৃংখলা বাহিনীর কড়া নিরাপত্তা দিতে দেখা গেছে।

তৃতীয় দফার প্রথমদিন বৃহস্পতিবার এক হাজার ৭৮০ জন রোহিঙ্গাকে ৩৮ টি বাসে চট্টগ্রামে পাঠানো হয়।

বিজ্ঞাপন

এর আগে গত ৪ ডিসেম্বর কক্সবাজারের আশ্রয়কেন্দ্র থেকে প্রথম দফায় ১ হাজার ৬৪২ জন এবং গত ২৮ ডিসেম্বর দ্বিতীয় দফায় ১ হাজার ৮০৫ জন রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তর করা হয়েছিল।

স্থানীয়রা বলছেন, রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরের জন্য বুধবার রাতেই উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন ঘুমধুম ট্রানজিট ক্যাম্পে নিয়ে আসা হয়। রাতেই উখিয়া ডিগ্রী কলেজ ক্যাম্পাসে জড়ো করা হয় বেশ কয়েকটি বাস।

উখিয়ার স্থানীয় সাংবাদিক ইমতিয়াজ নূর নিশান বলেন, শুক্রবার ১৮ টি বাসে অন্তত সাড়ে ৯ শত রোহিঙ্গাদের নিয়ে ১৮ টি বাস চট্টগ্রামের উদ্দেশে রওনা দিয়েছে। উখিয়া ডিগ্রী কলেজ ক্যাম্পাসে অন্তত আরো ৮/১০ টি বাস রোহিঙ্গাদের নিয়ে যেতে অবস্থান করতে দেখা গেছে।

স্থানীয় এ সাংবাদিক বলেন, “ জানতে পেরেছি তৃতীয় দফায় স্বেচ্ছায় ভাসানচর যেতে ২ হাজার ২২৪ জন রোহিঙ্গা নিবন্ধিত হয়েছে। এদের মধ্যে বৃহস্পতিবার ১ হাজার ৭৮০ জনকে বাস যোগে চট্টগ্রামে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। শুক্রবার পাঠানো হয়েছে সাড়ে ৯ শত জন রোহিঙ্গাকে। ”

ঘুমধুম ট্রানজিট ক্যাম্প থেকে উখিয়া ডিগ্রী কলেজ ক্যাম্পাস পর্যন্ত এলাকাজুড়ে ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিয়েছে আইন-শৃংখলা বাহিনী। সেখানে সাধারণ মানুষের চলাচলেও বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

কক্সবাজার শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা  অনানুষ্ঠানিক বক্তব্যে জানান, তৃতীয় দফায় স্বেচ্ছায় ভাসানচর যেতে আগ্রহী অন্তত দুই সহস্রাধিক রোহিঙ্গা। এসব রোহিঙ্গাদের মধ্যে দেড়-সহস্রাধিককে বৃহস্পতিবারই বাস যোগে চট্টগ্রামে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তৃৃৃৃতীয় দফায় দ্বিতীয়দিনে সাড়ে ৯ শত জনকে চট্টগ্রাম পাঠানো হয়েছেে।

শুক্রবার স্বেচ্ছায় যেতে যেসব রোহিঙ্গা নাম নিবন্ধন করবে তাদেরও চট্টগ্রাম পাঠানোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে
জানান শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্য়ালয়ের ওই কর্মকর্তা।

বিজ্ঞাপন