চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

তরুণদের নিয়ে ‘অধিনায়ক’ তামিমের নতুন লড়াই

কৃত্রিম আলোর সঙ্গে মানিয়ে নিতে তামিম ইকবাল একাদশের খেলোয়াড়দের অনুশীলন পরিকল্পনা হুট করেই বদলে গেল। বিকেল সাড়ে তিনটায় মাঠে আসার কথা থাকলেও তারা এলেন সন্ধ্যা সাড়ে পাঁচটায়। ততক্ষণে জ্বলে উঠেছে শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামের ফ্লাডলাইট। নেট সেশনে তামিমের সঙ্গে জুটি বাধলেন অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী দলের ওপেনার তানজিদ হাসান তামিম।

দুই তামিমের ব্যাটিং সেশনে বল করেছেন তিন স্পিনার- তাইজুল ইসলাম, মিনহাজুল আবেদীন আফ্রিদি, মেহেদী হাসান। পেসারদের মধ্যে ছিলেন শরিফুল ইসলাম। এ বাঁহাতির গতির মুখে খেলতে কষ্টই হয়েছে অধিনায়ক তামিমের। বল ছাড়তে গিয়ে অদ্ভুতভাবে একবার বোল্ড হয়ে যান দেশসেরা ওপেনার!

বিজ্ঞাপন

আরও কিছু দারুণ ডেলিভারিতে তামিমকে পরীক্ষায় ফেলেছিলেন শরিফুল। একবার ব্যাটের কানা ছুঁয়ে বল গেছে উইকেটের পেছনে। বাউন্সারও ছিল সমীহ জাগানিয়া। জুনিয়র তামিমকে চাপে ফেলেছিলেন লেগস্পিনার মিনহাজুল। বোলিং অ্যাকশন বদলে ফেলা তাইজুলের উপর দিয়েই গেছে দুই ব্যাটসম্যানের বড় শটের মহড়া।

ওপেনারদের সেশনটা খুব লম্বা ছিল না। মঙ্গলবার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ একাদশের বিপক্ষে ম্যাচে ইনিংসের সূচনা করতে দেখা যেতে পারে তাদের। তামিমের দলের তৃতীয় ওপেনার এনামুল হক বিজয়।

দলটিতে আছেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মোহাম্মদ মিঠুন, মোস্তাফিজুর রহমানের মতো ক্রিকেটাররা।

বিজ্ঞাপন

বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে তিন দলেই তরুণ খেলোয়াড়দের সমাগম। তামিমের দলে আছেন বিশ্বজয়ী যুব অধিনায়ক আকবর আলী, শাহাদাত হোসেন দীপু। অনূর্ধ্ব-১৯ দলের সবচেয়ে বেশি চার ক্রিকেটার তামিমের দলে।

বাংলাদেশ দলের ওয়ানডে অধিনায়কত্ব পাওয়ার পর আর ম্যাচ খেলা হয়নি তামিমের। তিন দলের ওয়ানডে টুর্নামেন্টে নেতৃত্ব পাওয়া এ ওপেনারের জন্য তাই অভিজ্ঞতা অর্জনের মঞ্চও! যদিও তার ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আবাহনীর হয়ে নেতৃত্ব দেয়ার অভিজ্ঞতা আছে।

গত বছর নিয়মিত ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা চোটের কারণে শ্রীলঙ্কা সফরে যেতে না পারায় তামিমকে তিন ম্যাচের সিরিজের জন্য দেয়া হয়েছিল নেতৃত্বের ভার। বাংলাদেশ হোয়াইটওয়াশ হয়ে ফেরায় তামিমের অধিনায়কত্ব নিরাশ করেছিল সবাইকে।

মঙ্গলবার দুপুর দেড়টায় মিরপুরে শুরু হবে দিবা-রাত্রির ম্যাচ। সোমবার টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে নাজমুল হোসেন শান্ত একাদশের কাছে ৪ উইকেটে হেরে যায় মাহমুদউল্লাহ একাদশ।

তামিম একাদশ: তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), তানজিদ হাসান তামিম, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ মিঠুন, শাহাদাত হোসেন দীপু, আকবর আলী, ইয়াসির আলি চৌধুরী, এনামুল হক বিজয়, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মোস্তাফিজুর রহমান, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, শরিফুল ইসলাম, শেখ মেহেদী হাসান, তাইজুল ইসলাম, মিনহাজুল আবেদীন আফ্রিদি।

মাহমুদউল্লাহ একাদশ: মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), নাঈম শেখ, লিটন দাস, মুমিনুল হক, মাহমুদুল হাসান, নুরুল হাসান সোহান, সাব্বির রহমান, ইমরুল কায়েস, হাসান মাহমুদ, ইবাদত হোসেন, রুবেল হোসেন, মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী, মেহেদী হাসান মিরাজ, রকিবুল হাসান, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, আবু হায়দার রনি, মুরাদ খান।