চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জাতীয় পুরস্কার জুটলো, কিন্তু প্রেক্ষাগৃহে চললো মাত্র পাঁচদিন!

ভারতের ৬৬তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘোষণা:

জাতীয় পুরস্কার জুটলো, কিন্তু প্রেক্ষাগৃহে চললো মাত্র পাঁচদিন: আফসোস ‘তারিখ’-এর সংলাপ রচয়িতা চূর্ণী গাঙ্গুলীর

ভারতের ৬৬তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে বাংলায় সেরা ছবির পুরস্কার জিতল সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ছবি ‘এক যে ছিল রাজা’। বিশেষ জুরি বিভাগে পুরস্কার পেল ইন্দ্রদীপ দাশগুপ্তর ‘কেদারা’। ‘তারিখ’-এ সংলাপের জন্য সেরার পুরস্কার ছিনিয়ে নিলেন চূর্ণি গঙ্গোপাধ্যায়। কিন্তু পুরস্কার জিতেও আফসোস করছেন চূর্ণী।

চূর্ণি গঙ্গোপাধ্যায় টাইমস অব ইন্ডিয়াকে দেয়া একটি সাক্ষাতকারে অভিযোগ করে বলেছেন, মুক্তির পরে ছবির প্রচারণা হয় দর্শকের মুখে মুখে। কিন্তু জনপ্রিয় হওয়ার জন্য তার ছবিটি পর্যাপ্ত সময় পায়নি। পাঁচ দিনও হলে দেখানোর সুযোগ পাওয়া যায়নি! হল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল ‘কলঙ্ক’ সিনেমার জন্য বাড়তি চাপ আছে। অথচ কলঙ্ক ভালো ব্যবসা না করার পরেও তারিখ ছবিটি ফিরিয়ে আনার কোনো প্রস্তাব দেয়া হয়নি।

বিজ্ঞাপন

সৃজিত মুখোপাধ্যায়েরর ‘এক যে ছিল রাজা’ ছবিটিকে এসব ঝামেলার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়নি। তবে তার অভিযোগ অন্য। তিনি বলেছেন, ‘যিশু সেনগুপ্ত এই চরিত্রে অভিনয়ের জন্য জাতীয় পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য। মেকআপ আর্টিস্ট সোমনাথ কুণ্ডুও জাতীয় পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য।’

পুরস্কার জয়ের পরে ইন্দ্রদীপ দাশগুপ্ত খুশি। তবে তিনি আশা করেছিলেন আরও অনেক বাঙালি মেধাবী প্রশংসা পাবেন।

তিনি বলেন, ‘অরিজিৎ সিং সেরা গায়কের পুরস্কার পাওয়ায় আমি খুশি। বলিউডের একটি গানের বাজেট কলকাতার একটি সিনেমার বাজেটের দ্বিগুণ। আমাদের জন্য সেরকম কিছু তৈরি করা কঠিন। তবে আমার মনে হয়েছে সাউন্ডে ‘কেদারা’র জন্য অনির্বাণ সেনগুপ্ত পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য ছিলেন। কৌশিক গাঙ্গুলিও। মূল ক্যাটাগরিতে বাংলার আরও কয়েকজনকে পুরস্কার পেতে দেখলে আরও বেশি খুশি হতাম। -টাইমস অব ইন্ডিয়া

Bellow Post-Green View