চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘ছোট’ দল বিশ্ব পরিচালনা করে না: জি-৭ নিয়ে চীনের তাচ্ছিল্য

চীন জি-৭ এর শীর্ষ নেতাদের সতর্ক করে বলেছে, কয়েকটি দেশের ‘ছোট’ গ্রুপ দিয়ে বিশ্বের ভাগ্য নির্ধারণের দিন অনেক আগেই চলে গেছে।

আসন্ন সম্মেলনে চীনের বিরুদ্ধে একটি পরিকল্পনা পাস করতে যাচ্ছে জি-৭ ভুক্ত দেশগুলো। তারই প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে লন্ডনে নিযুক্ত চীনা দূতাবাস জানান, সেই সব দিন অনেক আগেই চলে গেছে যখন বৈশ্বিক সিদ্ধান্তগুলো ছোট ছোট দল দ্বারা নির্ধারিত হতো।

‘আমরা সবসময় বিশ্বাস করি ছোট বা বড় দেশ, শক্তিশালী বা দুর্বল দেশ, ধনী বা দরিদ্র দেশ সবাই সমান এবং বৈশ্বিক বিষয়াদি সবগুলো দেশের পরামর্শমতোই নিয়ন্ত্রণ করা উচিত। ’

শীর্ষস্থানীয় বৈশ্বিক শক্তি হিসেবে চীনের পুনরায় উত্থানকে একটি তাৎপর্যপূর্ণ ভূরাজনৈতিক ঘটনা হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। ১৯৯১ সালে স্নায়ুযুদ্ধের শেষে সোভিয়েত ইউনিয়নের ভেঙে পড়ার পরে এটাই সবার নজর টেনেছে।

বিজ্ঞাপন

বর্তমানে জি-৭ নেতারা দক্ষিণ-পশ্চিম ইংল্যান্ডে আলোচনা করছেন। গত ৪০ বছরে চীনের দৃশ্যমান অর্থনৈতিক ও সামরিক উত্থানের পরে রাষ্ট্রপতি শি জিনপিংয়ের ক্রমবর্ধমান দৃঢ়তার প্রতি সুসংগত প্রতিক্রিয়া সন্ধান করছেন তারা।

জি-৭ ভুক্ত দেশগুলো চীনের বিরুদ্ধে যে পরিকল্পনা পাস করতে যাচ্ছে, সেখানে নিম্ন-মধ্যম আয়ের কোম্পানিগুলোকে উন্নত অবকাঠামো তৈরিতে সহায়তা করার পরিকল্পনা হাতে নিচ্ছে দেশগুলোর নেতারা।

বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ নামে চীনের একটি প্রকল্প আছে। এর আওতায় তারা রেলপথ, সড়কপথ এবং বন্দর নির্মাণে বিভিন্ন দেশকে সহায়তা করে। ২০১৩ সালে বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ নিয়ে এসেছিল চীনের জিনপিং প্রশাসন। যার মাধ্যমে একাধিক গরিব দেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থায় বিনিয়োগ করেছিল তারা।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেন জানিয়েছিলেন, যুক্তরাষ্ট্র দ্বারা চালিত বিল্ড বেটার ওয়ার্ল্ড (বি৩ডব্লিউ) পরিকল্পনাটি অনুরূপ চীনা পরিকল্পনার ভালো বিকল্প হতে পারে।

বিবৃতিতে জি-৭ নেতারা জানিয়েছেন, অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য তারা উচ্চমানের এবং স্বচ্ছ অংশীদারিত্ব প্রস্তাব দেবেন। তবে এই প্রকল্পের অর্থায়ন কীভাবে হবে তা এখনো স্পষ্ট নয়।

বিজ্ঞাপন