চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

চাঁদের পাথর-মাটি এখন চীনে

চাঁদ থেকে পাথর ও মাটি নিয়ে পৃথিবীতে ফিরেছে চীনের মহাকাশযান চ্যাং’ই-৫। স্থানীয় সময় বুধবার দিবাগত রাত ১টা ৩০ মিনিটে ক্যাপসুলটি মঙ্গোলিয়ায় অবতরণ করে। 

যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাপোলো ও সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের লুনা চন্দ্রাভিযানের ৪০ বছরের বেশি সময় পর তৃতীয় কোনো দেশ হিসেবে চীনের মহাকাশযান চাঁদ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পৃথিবীতে ফিরল।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

গত ২৪ নভেম্বর চ্যাং’ই-৫ চাঁদের উদ্দেশে পৃথিবী থেকে রওনা হয়েছিল। এরপর গত ১ ডিসেম্বর চীনের স্থানীয় সময় রাত ১১টার পর চন্দ্রযানটি চাঁদের পূর্বনির্ধারিত স্থানে অবতরণ করে। অবতরণের পর সেখানকার কয়েকটি ছবিও পাঠিয়েছিল।

চায়না ন্যাশনাল স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের এক বিবৃতির বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা সিনহুয়া জানায়, ‘ চ্যাং’ই-৫ চাঁদ থেকে নমুনা সংগ্রহ করেছে।’

এর আগে ৪ ডিসেম্বর বিশ্বের দ্বিতীয় দেশ হিসেবে চাঁদের বুকে পতাকা স্থাপন করে চীন। চীনের জাতীয় মহাকাশ সংস্থার প্রকাশিত ছবিগুলিতে দেখা যায় পাঁচ তারকাযুক্ত লাল পতাকাটি বায়ুহীন চাঁদের পৃষ্ঠের ওপরে স্থাপন করা হয়েছে।

পাথরের নমুনা নিয়ে চন্দ্রপৃষ্ঠ ছাড়ার আগে ছবিগুলি মহাকাশযান চ্যাং-৫ ক্যামেরা বন্দি করে ।আগের দুটি চীনা চন্দ্র মিশনের পতাকা নিয়ে গেলেও তা চন্দ্র পৃষ্ঠে স্থাপন করতে পারেনি।

বিজ্ঞাপন

২০১৯ এবং ২০১৩ সালে চীনের আরও দুটি মহাকাশযান চাঁদে প্রথমবারের মতো অবতরণ করেছিল।

চাঁদ থেকে আনা নমুনাগুলো পৃথিবীর এই একমাত্র উপগ্রহটির ভূতাত্ত্বিক গঠন ও পুরোনো ইতিহাস সম্পর্কে জানতে বিজ্ঞানীদের সামনে নতুন দুয়ার উন্মোচিত করবে বলে মনে করা হচ্ছে।

‘চ্যাং’ই-৫’-এর ক্যাপসুলটি অবতরণের পর দ্রুত সেখানে পোঁছায় উদ্ধারে সাহায্যকারী দল। এর আগে ইনফ্রারেড ক্যামেরার সাহায্যে ক্যাপসুলটির অবস্থান চিহ্নিত করা হয়।

সফল এই চন্দ্রাভিযানকে চীন মহাকাশে তাদের ক্রমবর্ধমান সক্ষমতার আরেকটি উদাহরণ হিসেবে দেখবে বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

চ্যাং’ই-৫ মহাকাশযানের নামকরণ করা হয় চীনা প্রাচীন চাঁদের দেবীর নামানুসারে। লং মার্চ ৫ রকেটে করে এই মহাকাশযানটি উৎক্ষেপণ করা হয়। চাঁদের ঝড়ের সমুদ্র নামের অনুন্মোচিত অংশ থেকে ২ কেজি নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে আসতে চেষ্টা করবে সে। চাঁদের উৎস ও গঠন বোঝার কাজে সাহায্য করবে।

এই ধরনের সর্বশেষ অভিযানের নাম ছিলো লুনা ২৪। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ১৯৭৬ সালে তা পরিচালনা করে। ১৯৭৬ সালের ওই অভিযানে যেখানে সংগ্রহ করা হয়েছিলো ১৭০ গ্রাম নমুনা। আর অ্যাপোলো অভিযানে মানুষ গিয়ে সংগ্রহ করেছিলো ৩৮২ কেজি মাটি ও পাথর।

১৯৭০ সালের পর প্রথমবারের মতো চাঁদের পাথর পুনরুদ্ধারের প্রচেষ্টা শুরু করে চীন। মানুষবিহীন চ্যাং’ই-৫ প্রব গত ২৪ নভেম্বর ওয়েনচ্যাং স্পেস সেন্টার থেকে উৎক্ষেপণ করা হয়। গত প্রায় একসপ্তাহ পর সফলভাবে অবতরণ করে প্রায় ৮.২ টনের চীনের এ মহাকাশযান।

বিজ্ঞাপন