চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কোটা সংস্কার: একাংশের বিক্ষোভ টিএসসিতে

আন্দোলন স্থগিতে কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশ অমান্য করে সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের একাংশের বিক্ষোভ চলছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে।

এসব আন্দোলনকারীদের পক্ষ থেকে কয়েকজন জানান, সরকারের পক্ষ থেকে আমরা কোনো সুস্পষ্ট আশ্বাস পাইনি। এই জন্য আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছি। সরকারের উপর মহল থেকে সুনির্দিষ্ট কোনো বক্তব্য না আসা পর্যন্ত আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব।

কোটার পক্ষে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে ঢাবি প্রাণিবিদ্যা বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী সঞ্জয় কুমার মন্ডল চ্যানেল অাই অনলাইনকে বলেন: ‘প্রথমত আমরা সরকারের এক মাসের আশ্বাস বিশ্বাস করি না। সরকারকে তিন দিনের মধ্যে লিখিত বক্তব্য দিতে হবে এবং সাত দিনের মধ্যে বাস্তবায়ন করতে হবে। তাছাড়া আন্দোলন চালিয়ে যাব এবং অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস বর্জন করব।’

তিনি অারও বলেন: ‘আমরা চাই কোটার সংস্কার। আমরা কোনো রাজনৈতিক দলের পক্ষে নই। আমাদের কোনো প্রতিনিধি নাই এবং কোনো প্রতিনিধি আমরা পাঠাবো না।’

কেন্দ্রীয় কমিটি তাদের বোঝানোর চেষ্টা করলেও বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের একটি অংশ সেটি না মেনে সকাল ১১টা থেকে তারা বিক্ষোভ সমাবেশ চালিয়ে যাচ্ছে টিএসসির রাজু ভাস্কর্যের সামনে।

এক পর্যায়ে আন্দোলনকারীরা মিছিল নিয়ে চারুকলা পর্যন্ত যান। শাহবাগে পুলিশের অবস্থান দেখে ফিরে এসে টিএসসিতে অবস্থান নেন।

এর আগে একদল শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নিজেদের নিরাপত্তাহীনতার কথা বলে মানববন্ধন করে রাজু ভাস্কর্যের সামনে।

বিজ্ঞাপন

রোববার পাঁচ দফা দাবিতে কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতাকর্মীরা রাজধানীর শাহবাগে পূর্ব ঘোষিত অবস্থান কর্মসূচি শুরু করে। এক পর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে ব্যাপক সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে তারা।

রাতভর সংঘর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় চলে পুলিশ ও আন্দোলনকারীদের তাণ্ডব।

এরপর সোমবার তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে সরকারের প্রতিনিধি দলের সাথে আলোচনার পর ১ মাসের জন্য চলমান অান্দোলন স্থগিত ঘোষণা করা হয়।

তবে আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করে সোমবার রাতেই রাজু ভাস্কর্যে অবস্থান নেয় কোটা সংস্কার দাবি করা সাধারণ আন্দোলনকারীরা।

এ সময় তারা সরকারের সাথে আলোচনায় বসা কমিটিকে ‘অবাঞ্ছিত ঘোষণা’ করে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

আগামী ১৫ এপ্রিলের মধ্যে কোটা সংস্কারের দাবি না মানলে পরদিন ১৬ এপ্রিল সারাদেশের শিক্ষার্থীরা ‘চলো চলো ঢাকা চলো’ কর্মসূচির মাধ্যমে রাজধানীতে এসে আন্দোলন করবে বলেও জানানো হয়।

শেয়ার করুন: