চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কারো প্রতি দুর্বলতা থাকলে দায়িত্ব ছেড়ে দিন: ইসি

চট্টগ্রামের নির্বাচনে প্রিসাইডিং এবং পোলিং অফিসারদের কারো কোনো প্রার্থীর প্রতি সামান্য  দুর্বলতা থাকলে নির্বাচন প্রক্রিয়া থেকে সরে দাঁড়াতে বলেছে নির্বাচন কমিশন এবং প্রশাসন। নির্বাচন কমিশন প্রতিনিধি ও চট্টগ্রাম পুলিশ প্রধান বলেছেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে কোনো ধরনের আইনের ব্যত্যয় তারা মানবেন না।

Advertisement

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে তার নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে কাজ করবেন ১৬,৫০০ প্রিসাইডিং এবং পোলিং অফিসার। ভোটগ্রহণের ১১ দিন আগে তাদের প্রশিক্ষণ শুরু করেছে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়।

প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের যুগ্মসচিব জেসমিন টুলি বলেছেন, নির্বাচন কর্মকর্তাদের আইন অনুযায়ী তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে হবে। আইন অনুযায়ী কাজ করার জন্য নির্বাচন কমিশন থেকে সব ধরণের সহায়গণসংযোগ করেন তার  আশ্বাস দিয়ে তিনি বলেন, কারো কোনো প্রার্থীর প্রতি দুর্বলতা থাকলে তার নির্বাচনী প্রক্রিয়া থেকে সরে যাওয়া উচিত।

২০০৯ সালে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে রিটার্নিংঅফিসার ছিলেন জেসমিন টুলি। কঠিন হাতে ওই নির্বাচন পরিচালনা করে তিনি ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছিলেন। এবারের নির্বাচনে তিনি নির্বাচন কমিশনের প্রতিনিধি হিসেবে চট্টগ্রাম নির্বাচনের দেখভাল করছেন।

নির্বাচনীকর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণে জেসমিন টুলির মতো চট্টগ্রামের পুলিশ কমিশনার আব্দুল জলিল মণ্ডলও সকলকে নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান। ভোটের দিন ভোটারদের মধ্যে স্বস্তির পরিবেশের নিশ্চয়তা দিয়ে  তিনি বলেন, ভোটাররা নির্বিঘ্নে ভোট কেন্দ্রে যাবেন এবং ভোট দিয়ে নির্বিঘ্নে বাড়ি ফিরবেন। পুলিশ সেই নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে।

কর্মকর্তাদের প্রস্তুতির পাশাপাশি প্রার্থীদের প্রচারণা চলছে পুরোদমে। সকলকে নির্বাচনী আচরণবিধি মানতে বাধ্য করার কারণে প্রচারণা অনেকটাই শৃঙ্খল। স্বস্তি আছে তাই নগরজুড়ে। পোস্টারে ছেয়ে যাওয়া নগরীতে প্রতিশ্রুতির ডালা নিয়ে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন প্রার্থীরা।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার আগে দুই প্রধান প্রার্থীই নেমে যান প্রচারণার মাঠে। আওয়ামী সমর্থিত আ জ ম নাছির উদ্দিন গণসংযোগের সময় হণি বেকারীর মিসকান শাহ মাজার জিয়ারত করেন।  গণসংযোগ করেন চকবাজার বাকলিয়া চন্দপুরা এলাকায় । সেসময় তিনি বলেন, নির্বাচনী প্রচারণার জন্য সময় খুবই কম। সব ভোটারের কাছে যাওয়া সম্ভব না। তবুও আমরা সব ভোটারের কাছে আমাদের সালাম পৌঁছে দিতে চাই।

২০ দল সমর্থিত উন্নয়ন আন্দোলনের মনজুর আলমের মিছিলের বহর ছিলো কমলা রঙে রাঙা। তিনি গণসংযোগ করেছেন দেওয়ানহাট চৌমুহনী, পাঠানটুলী এলাকায়। জলাবদ্ধতা দূর করাসহ নানা সমস্যা দূর করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তিনি ভোট চান ভোটারদের কাছে।