চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কারস্টেনের যে পরামর্শে পাল্টে গিয়েছিলেন কোহলি

ভারতের ক্রিকেট ইতিহাসে গ্যারি কারস্টেন সেরা কোচদের একজন। তার হাত ধরেই ২০০৯ সালে টেস্ট র‍্যাঙ্কিংয়ের চূড়ায় পৌঁছেছিল দেশটি, ২০১১ সালে জিতেছিল ওয়ানডে বিশ্বকাপ। ২০০৭ সালে গ্রেগ চ্যাপেলকে সরিয়ে কোচ করা হয় সাউথ আফ্রিকার সাবেক ব্যাটসম্যানকে।

কারস্টেনের দলে ছিল নতুন-অভিজ্ঞদের দারুণ এক মিশেল। যেমন ছিলেন শচীন টেন্ডুলকার, তেমনি জায়গা হয়েছিল বিরাট কোহলিরও। ২০০৮ সালে অভিষিক্ত কোহলির আন্তর্জাতিক পথচলা সাবেক এ কোচের অধীনেই। প্রোটিয়াদের সাবেক ওপেনার জানাচ্ছেন, প্রথম দেখাতেই তিনি চিনে নিয়েছিলেন বিরাট কোহলির প্রতিভা। জানতেন, তখন যেটা দেখা যাচ্ছিল সেটাই কোহলির সেরাটা নয়।

ভারতের বর্তমান অধিনায়ককে নিয়ে বলতে গিয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এক ওয়ানডে সিরিজের কথা টেনেছেন কারস্টেন। সিরিজে কোহলি ভালো শুরু করেও বড় শট নিতে গিয়ে উইকেট ছুঁড়ে এসেছিলেন। কারস্টেন তখনই বুঝেছিলেন ডানহাতি ব্যাটসম্যানের ক্যারিয়ারকে পরবর্তী পর্যায়ে নিয়ে যেতে হলে অহেতুক বড় শটের ঝুঁকি নেয়াটা বাদ দিতে হবে।

দ্য আরকে শোতে কোহলিকে নিয়ে কথা বলার সময় কারস্টেন স্মৃতি টেনে আনেন, ‘আমার যখন বিরাটের সঙ্গে প্রথমবার দেখা হয়েছিল, তখন ওর মধ্যে অসাধারণ ক্ষমতা ছিল এবং প্রতিভা। ও একজন নতুন প্রজন্মের খেলোয়াড় ছিল। কিন্তু আমি জানতাম সে তার সেরা জায়গাটায় নেই। তাই আমরা অনেক আলোচনা করতাম।’

‘আমি কখনও ভুলব না, যখন আমরা শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ খেলছিলাম। ও দারুণ ব্যাট করছিল এবং ৩০ রানে অপরাজিত ছিল। সেই সময় হঠাতই সিদ্ধান্ত নিল বোলারকে লংঅনের উপর দিয়ে ছক্কা হাঁকাবে। তা করতে গিয়ে আউট হয়ে গেল।’

‘আমি শুধু ওকে বলেছিলাম, তুমি যদি তোমার ক্রিকেটকে পরবর্তী পর্যায়ে নিয়ে যেতে চাও, তোমাকে সেই বলটি খেলতে হতো মাটিতে রেখে। তুমি জানো তুমি বল উড়িয়ে হিট করতে পারো, তবে তাতে অনেক ঝুঁকি আছে। অমার মনে হয় সে কথাটা মনে রেখেছে এবং পরের ম্যাচে কলকাতায় সেঞ্চুরি করেছিল।’