চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ: ঢাকার প্রবেশপথে তল্লাশি, নিরাপত্তা জোরদার

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশকে কেন্দ্র করে ঢাকার প্রবেশপথগুলোতে বসানো হয়েছে তল্লাশি চৌকি।

পাশাপাশি সমাবেশস্থলসহ পুরো রাজধানীজুড়ে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এলাকায় বিপুল সংখ্যক আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

সমাবেশকে ঘিরে রাজধানীর প্রতিটি প্রবেশপথ বিশেষ করে গাবতলী, সায়েদাবাদ, উত্তরা এলাকায় পুলিশ তল্লাশি চৌকি স্থাপন করেছে। রাজধানীমুখী সকল যানবাহনের যাত্রীদের তল্লাশি করে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে।

গাবতলীতে প্রতিটি গাড়ি থামিয়ে প্রত্যেক যাত্রী ও ব্যাগ তল্লাশি করছে পুলিশ। এর ফলে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মিরপুর বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) রুহুল আমিন সাগর বলেন, নিরাপত্তার স্বার্থে পুলিশ যানবাহনগুলো থামিয়ে তল্লাশি চালাচ্ছে।

শুধু গাবতলী নয় সমাবেশকে কেন্দ্র করে সায়েদাবাদ ও যাত্রাবাড়ি এলাকায় তল্লাশি চালানো হয়েছে।

ওয়ারী বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) ফরিদ উদ্দিন বলেন, এ সমাবেশকে ঘিরে যেন কোন ধরনের বিশৃঙ্খলা ও নাশকতার চেষ্টা না হয়, সে বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ থেকে নির্দেশনা রয়েছে। আমরা সে অনুযায়ী কাজ করছি। নিরাপত্তাজনিত কারণেই ঢাকায় প্রবেশ পথগুলোতে তল্লাশি করা হচ্ছে।

Advertisement

মঙ্গলবার সকাল থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, শাহবাগ ও রমনা এলাকাসহ পুরো রাজধানীতে পুলিশের বাড়তি তৎপরতা লক্ষ্য করা গেছে।

উদ্যান এলাকায় থানা পুলিশ, মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও সাদা পোশাকের গোয়েন্দা পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন। শাহবাগ ও টিএসসি মোড়ে প্রস্তুত রাখা হয়েছে পুলিশের সাজোয়া যান, জলকামান, প্রিজনভ্যান।

সরেজমিনে শাহবাগ, মৎস্যভবন, হাইকোর্টের সামনের এলাকা, দোয়েল চত্ত্বর, টিএসসি থেকে সোহরাওয়র্দী উদ্যানের প্রতিটি প্রবেশ পথে সতর্ক অবস্থায় দেখা গেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যদের।

সমাবেশের কারণে রাজধানীর শাহবাগ মোড়, মৎস্যভবন, দোয়েল চত্বর এলাকায় ব্যারিকেড দিয়ে সবধরণের যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে।

ডিএমপি’র রমনা বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মারুফ হোসেন সরদার চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, জনসভায় জনসমাগমের কথা মাথায় রেখে পুরো সোহরাওয়ার্দী উদ্যান এলাকায় নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা হাতে নেওয়া হয়েছে। এর বাইরে পুরো ঢাকা শহরেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে ডিএমপি।

‘‘যে কোন ধরনের অপতৎপরতা এড়াতে পুলিশ সতর্ক রয়েছে। কেউ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’’

এর আগে সোমবার রাতে ডিএমপি’র মিডিয়ার এন্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের ডিসি মাসুদুর রহমান জানান, ডিএমপি থেকে নিরাপত্তা, মাইকের নির্দিষ্ট ব্যবহার, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জনসভা শেষ করাসহ বেশ ক’টি শর্তে ঐক্যফ্রন্টকে জনসভা করার অনুমতি দেয়া হয়েছে।