চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

এখন কেবল বৃষ্টির প্রার্থনাই করতে পারে ভারত

বল হাতে ভারতকে পথ দেখাচ্ছিলেন মোহাম্মদ শামি। তার সুইংয়ে অনেকটা সময় দিশেহারা ছিল স্বাগতিক ইংল্যান্ড। ১৩১ রানে সাজঘরে পাঁচ ব্যাটসম্যান। এমন সময় হাল ধরলেন জনি বেয়ারস্টো ও ক্রিস ওকস। দুজনের ব্যাটিংয়ে উল্টো চাপে বিরাট কোহলির দল। লর্ডস টেস্টে হার দেখতে থাকা ভারত পরাজয় এড়াতে পারবে কেবল অতিমানবীয় ব্যাটিং কিংবা বৃষ্টির কল্যাণে।

প্রথম ইনিংসে ভারতের করা ১০৭ রানের জবাবে তৃতীয় দিনে ইংল্যান্ড থেমেছে ৬ উইকেট হারিয়ে ৩৫৭ রানে। ৪ উইকেট হাতে রেখে লিড ২৫০ রানের। তাদের শুরুটা ছিল সাবধানী। কিন্তু দলের ২৮ রান উঠতেই শামির বোলিংয়ে ১১ রানে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ওপেনার কিটন জেনিংস। একটু পর ইশান্ত শর্মার অফস্টাম্পের বাইরে ভয়ঙ্কর এক বল খেলতে না পেরে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন অ্যালিস্টার কুক(২১)। এরপর একে একে অধিনায়ক জো রুট(১৯), অভিষিক্ত ওলে পোপ(২৮) ও জশ বাটলার (২৪) যখন ফিরলেন ইংলিশদের রান তখন ১৩১।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

কিন্তু উইকেটে এসে স্বাগতিকদের পথ দেখালেন বেয়ারস্টো। কিছুক্ষণ পর তাকে সঙ্গ দিতে উইকেটে ক্রিস ওকস। মূলত বোলিং অলরাউন্ডার হলেও তার ব্যাটিং ছিল রীতিমত ঈর্ষা জাগানিয়া। শুরুতে বেয়ারস্টোকে সঙ্গ দিলেও পরে ক্রমেই হাত খুলেছেন ওকস। দুজনে মিলে পাল্লা দিয়ে করেছেন রান।

১৩১ থেকে জুটি গড়ে ৩২০ রানে গিয়ে আলাদা হয়েছেন বেয়ারস্টো। ১৮৯ রানের জুটি ভাঙার আগে ৯৩ রানে আউট হয়েছেন ইংলিশ উইকেটরক্ষক। আর ওকস পেয়েছেন তার ক্যারিয়ারের প্রথম শতকের দেখা। আর এরই মধ্যে ২৫০ রানের লিডের দেখাও পেয়ে গেছে ইংল্যান্ড। এর আগে বোলিংয়ে দুবার লর্ডসের অনার্সবোর্ডে নাম লেখালেও ব্যাটিংয়ে এই প্রথম তার নাম উঠলো সেই বোর্ডে।

১২০ রানে চতুর্থ দিন শুরু করবেন ওকস। তাকে ২২ রানে সঙ্গ দেবেন স্যাম কুরান। তবে এখানেও আছে সমস্যা। প্রথম দুইদিন যেভাবে বৃষ্টি হয়েছে লর্ডসে, চতুর্থ দিনেও থাকতে পারে তার বাগড়া। আর ম্যাচ বাঁচাতে এখন এই কামনা ছাড়া উপায় নেই ভারতের।

Bellow Post-Green View