চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ঋণের সুদহার কমাতে কমিটি, প্রতিবেদন ৭ কর্মদিবসের মধ্যে

ব্যাংক ঋণের সুদহার কমাতে বাংলাদেশ ব্যাংকের জ্যেষ্ঠ ডেপুটি গভর্নর এস এম মনিরুজ্জামানকে আহ্বায়ক করে সাত সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটিকে আগামী ৭ কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

রোববার সন্ধ্যায় গভর্নর ফজলে কবির এ কমিটি গঠন করেন। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. জায়েদ বখত, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের চেয়ারম্যান কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ, রূপালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. ওবায়েদ উল্লাহ্ আল্ মাসুদ, এবিবি চেয়ারম্যান ও মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের এমডি সৈয়দ মাহবুবুর রহমান, আইএফআইসি ব্যাংকের এমডি শাহ আলম সারওয়ার এবং এনআরবি ব্যাংকের এমডি মো. মেহমুদ হোসেন।

বিজ্ঞাপন

কমিটিকে ব্যাংক ঋণের সুদহার কমানোর প্রক্রিয়ার বিষয়ে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। তবে কমিটি চাইলে সদস্য সংখ্যা বাড়াতে পারবে বলেও এখতিয়ার দেয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

ব্যাংক মালিকরা ঋণের সুদহার এক অংকে নামিয়ে আনতে ২০১৮ সালের আগস্টে প্রধানমন্ত্রীকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এ প্রতিশ্রুতির বিনিময়ে তারা আমানতের ৫০ শতাংশ বেসরকারি ব্যাংকে রাখা, বাণিজ্যিক ব্যাংক কর্তৃক কেন্দ্রীয় ব্যাংকে সংরক্ষিত নগদ জমা বা সিআরআর সংরক্ষণের হার কমানো এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে স্বল্পমেয়াদি ধারের নীতিনির্ধারণী ব্যবস্থা রেপোর সুদহার কমিয়ে নেয়াসহ একের পর এক সুবিধা নিয়েছেন। কিন্তু এক অংকের সুদহার বাস্তবায়ন করেনি।

এমতাবস্থায় সুদ হার এক অংকে আনতে ও খেলাপি ঋণ কমাতে আজ রোববারই একটি কমিটি গঠন করা হবে বলে জানিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। কিভাবে সুদ কমানো যায় সেই কৌশল সম্পর্কে এই কমিটি আগামী ৭ দিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত জানালে সেই অনুযায়ী ১ জানুয়ারি সুদহার হ্রাস এবং খেলাপি ঋণ কমিয়ে আনার কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানান তিনি।

রোববার রাজধানীর শেরে বাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে ব্যাংক মালিক ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের সাথে বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান তিনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, দেশে দিনদিন বেকারত্ব বাড়ছে। এই বেকারত্ব কমাতে হলে উৎপাদনশীল খাতে বিনিয়োগের কোন বিকল্প নেই। আর উৎপাদনশীল খাতকে বাঁচাতে ব্যাংক ঋণের সুদ হার এক অংকে নামিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এখনো পর্যন্ত সুদহার এক অংকে নেমে আসেনি কেন এবং খেলাপি ঋণ দিন দিন কী কারণে বাড়ছে সেটা তদারকির জন্য একজন ডেপুটি গভর্নরকে প্রধান করে কমিটি গঠন করা হয়েছে।

Bellow Post-Green View