চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ঈদ ফ্যাশনে লেয়ার ও ফ্রিলের জয়জয়কার

ঈদের সময়টা এবার গরম হওয়ায় হালকা রঙ ও আরামদায়ক কাপড়ের দিকে ঝুঁকছেন ক্রেতারা। পোশাকে তাই সুতির ব্যবহার বেশি। তবে ঈদ উৎসবের একটু জমকালো পোশাক পরতে পছন্দ করেন অনেকেই। তারা বেছে নিচ্ছেন কাতান, সিল্ক, মসলিনের মতো কাপড়গুলো।

এবার ঈদের পোশাকের কাপড় যাই হোক, মূল বিষয় হলো নানা ধরণের কাট। সালোয়ার কামিজে সবচেয়ে বড় পরিবর্তন এসেছে গলা ও হাতায়। এছাড়াও পায়জামার ডিজাইনেও এসেছে পরিবর্তন। এবার কামিজের গলায় বেশি ব্যবহার হচ্ছে বোট নেক। অফ শোল্ডার সালোয়ার কামিজও পছন্দের তালিকায় আছে অনেকের। আর হাতায় চলছে কুচি, বেলবটম। ওড়নাতে নেট ও কুচির ব্যবহার দেখা গিয়েছে। এবছরও লং কামিজ পছন্দ করছেন অধিকাংশ নারী।

বিজ্ঞাপন

সাধারণ সেলোয়ার-কামিজের পাশাপাশি সারারা ও ঘারারা পছন্দ করছেন একটু কমবয়সীরা। এধরনের পোশাকের উপরের অংশ শর্ট কামিজ বা টপসের মতো করে বানানো হয়। আর নিচের পায়জামা তৈরি করা হয় অনেক কুচি ও ঘের দিয়ে, কিছুটা লেহেঙ্গার মতো করে। এই জামাগুলোতে জমকালো কাজ করা থাকে।

বিজ্ঞাপন

টিনএজরা বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে যাওয়ার জন্য বেছে নিচ্ছেন টপস ও কুর্তি। টপসের হাতেও চলছে লেয়ার এবং ফ্রিল। আর জিনসের ক্ষেত্রে স্ট্রেচ কাপড়ের প্যান্ট পছন্দ করছেন তরুণীরা। এছাড়াও জগার জিনস চলছে। চলছে রিপ জিনসের জয়জয়কার।

শাড়িতেও এবার বৈচিত্র্য এসেছে। পশ্চিমা ধাঁচের সঙ্গে দেশি ঘরানার ফিউশন অ্যানা হয়েছে প্যাটার্নে। শাড়ির ক্ষেত্রে আঁচলে টারসেল, ঝালর আর পাড়ে ফ্রিল নকশা দেখা যাচ্ছে বেশি। ব্লাউজের হাতাতেও লেয়ার ও কুচির ব্যবহার দেখা যাচ্ছে। শাড়ির পাশাপাশি এবার চলছে শাড়ি-গাউন। শাড়ি এবং গাউনের মিশ্রণে তৈরি এই পোশাকগুলোর কোমরে থাকছে বেল্ট। আঁচল চিকন করে কাঁধে পিন দিয়ে আটকানো। এর উপর দেখা যাচ্ছে জারদৌসি নকশা। এধরনের পোশাকগুলো যে কোনো উৎসবের সঙ্গে মানানসই।

ছবি: বিশ্বরঙ

Bellow Post-Green View