চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আর্থিক প্রতিষ্ঠানে লভ্যাংশের সীমা বেড়ে দ্বিগুণ

ব্যাংকিং খাতের পর এবার আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর লভ্যাংশ ঘোষণায়ও সীমা বাড়াল বাংলাদেশ ব্যাংক। এখন থেকে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো শেয়ারধারীদেরকে ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশসহ মোট ৩০ শতাংশ লভ্যাংশ দিতে পারবে। অর্থাৎ ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ছাড়াও ১৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার দিতে পারবে।

সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংক এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

এতে বলা হয়, সামগ্রিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো সর্বোচ্চ ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশসহ মোট ৩০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করতে পারবে।

বিজ্ঞাপন

গত ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ সপ্তাহে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ১৫ শতাংশের বেশি লভ্যাংশ দিতে পারবে না বলে প্রজ্ঞাপন জারি করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। এই ঘোষণায় দফায় দফায় ধস নামে শেয়ারবাজারে। এরপর বাজারে এই পতন ঠেকাতে গত ১৫ মার্চ পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি বৈঠক করে বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে।

ওই বৈঠকে লভ্যাংশ ঘোষণায় সীমা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বৈঠক শেষে সেদিন বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেছিলেন শিগগিরই এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক নতুন নির্দেশনা দিবে বলে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

নতুন প্রজ্ঞাপনে আগের নির্দেশনাগুলো অপরিবর্তিত রাখা হয়। আগের নির্দেশনায় বলা হয়েছিল, কোনো প্রতিষ্ঠান যত ভালো মুনাফাই করুক না কেন লভ্যাংশ নির্ধারিত সীমার বেশি হবে না। যাদের খেলাপি ঋণ ১০ শতাংশের বেশি তারা নগদে কোনো লভ্যাংশই বিতরণ করতে পারবে না। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান সর্বোচ্চ ৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার দিতে পারবে। ব্যয় সাশ্রয় ও হাতে নগদ তারল্য নিশ্চিত করতে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ওই নির্দেশনায় বলা হয়েছিল, বৈশ্বিক মহামারির প্রভাব থেকে সৃষ্ট চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ব্যয় সাশ্রয়ী পরিচালন প্রক্রিয়া অনুসরণের পাশাপাশি মূলধন সাশ্রয়ী ও তারল্য সহায়ক লভ্যাংশ বণ্টন নীতিমালা জরুরি।