চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আওয়ামী লীগ ধোয়া তুলসী পাতা নয়: ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন: আমরা কখনও দাবি করিনি আওয়ামী লীগ ধোয়া তুলসীপাতা। এখানে সব লোক অন্যায় করে না, অপরাধ করেনা, চাঁদাবাজি করে না, টেন্ডারবাজি করে না, গডফাদারগিরি করে না এমন কথা কখনও বলিনি।

সোমবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালেয় সিনেট ভবনে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটির উদ্যোগে শেখ হাসিনার ৭৩মত জন্মদিন উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের ৭৩জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন: বিএনপি এখন যে বিচার বিচারহীনতার সংস্কৃতির কথা বলছে! প্রশ্ন হচ্ছে আমরা বিচারহীনতার সংস্কৃতি গড়ে তুলেছি কিনা? আমাদের অনেক নেতা জেলে আছে, অনেক নেতাকর্মী গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে ঘুরছে, আবার অনেক এমপি-মন্ত্রীও দুদকের মামলায় হাজিরা দিচ্ছে। অনেকের বিরুদ্ধে চার্জশিট পর্যন্ত হয়ে গেছে।

‘এদের অনেকে গণভবন এসে প্রধানমন্ত্রীকে জামিনের জন্য অনুরোধ করেছেন। আমাদের নেত্রী সরাসরি বলে দিয়েছেন, আমি এখানে দুর্নীতির ওকালতি করিনা। আমাদের নেত্রী দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করছে, কাউকে ছাড় দেওয়া হচ্ছে না।’

বিজ্ঞাপন

এসময় পাল্টা অভিযোগ করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন: বিএনপি এদেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতি শুরু করেছিলো, আমরা নই। তারা হাওয়া ভবনকে ক্ষমতার বিকল্প কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলেছিলো। হাওয়া ভবন আসলে ছিলো খাওয়া ভবন, দুর্নীতি ও লুটপাটের আখড়া। আজ বিএনপি নেতারা দুর্নীতির বিরুদ্ধে নীতি কথা বলেন, এটা যেন ভূতের মুখে রাম নাম।

ক্যাসিনো ও জুয়া বড় সব নেতাদের নাম বেরিয়ে আসছে জানিয়ে কাদের বলেন: শেখ হাসিনার অ্যাকশন শুরু হয়ে হয়ে গেছে। ক্যাসিনোর এ টাকা কোন কোন নেতার কাছে যেতো তা তদন্ত করে বের করা হচ্ছে। এর মধ্যে পত্র-পত্রিকা বিভিন্ন অনলাইনে নিউজ এসে গেছে বিএনপি অনেক বড় বড় নেতার পকেটেও ক্যাসিনো-জুয়ার এ অবৈধ টাকা যেতো।

ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন: রাজনীতিতে সৌজন্যতা বোধ বিরল প্রাণীর মতো হারিয়ে গেছে। এর মধ্যে ছাত্রলীগের নেতৃত্বেও পরিবর্তন এসেছে। আমি ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের আহ্বান জানাবো, কোনভাবেই খারাপ সংবাদের শিরোনাম হওয়া যাবে না। বঙ্গবন্ধুর চির বিজয়ী আদর্শের সুনামের ধারা ফিরিয়ে আনতে হবে৷

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দীর পরিচালনায় এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জাতীয় অধ্যাপক ড. মো. আনিসুজ্জামান, জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান, বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান ড. ভীষ্মদেব চৌধুরীসহ অনেকে।

Bellow Post-Green View