চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

অর্থনীতির গতিশীলতায় আছে বাংলাদেশ

বৈশ্বিক কোভিড মহামারীতে বাংলাদেশের অর্থনীতির চাকা যেভাবে সাময়িক স্থবির হয়ে পড়েছিল তাতে আমরা সংশয় প্রকাশ করেছিলাম দেশের অর্থনীতি নিয়ে। সম্প্রতি বিভিন্ন সংস্থার জরিপে ও দেশের বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদদের কথায় আমরা আশার আলো দেখতে পাই। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীও আশ্বাসবাণী শুনিয়েছেন।
গতকাল প্রধানমন্ত্রী বলেন: অর্থ মন্ত্রণালয় অন্যান্য সময় কার্পণ্য করলেও কোভিড-১৯ মহামারীর মধ্যে যখন যেখানে যা দরকার, সেই অর্থ বরাদ্দ দেওয়ায় অর্থনীতি গতিশীল রাখা সম্ভব হয়েছে। গতকাল সকালে তিনি বলেন: অর্থ মন্ত্রণালয় সাধারণত সবকিছু দিতে গেলে একটু হাত টেনে রাখে, একটু কিপটামো করে, এবার কিন্তু কিপটামো করে নাই। একেবারে হাত খুলে যেখানে যা দরকার আমরা দিয়ে দিয়েছি। সেভাবে দেওয়া হয়েছে বলেই আজকে আমাদের যেই প্রণোদনা প্যাকেজ আমরা দিলাম, এই প্রণোদনা প্যাকেজ দেওয়ার ফলে আমাদের অর্থনীতির চাকাটা কিন্তু সচল থেকেছে। আমাদের জিডিপির প্রায় ৪.০৩ শতাংশ আমরা প্রণোদনা প্যাকেজ হিসেবে দিয়ে দিয়েছি। সরকারি সহায়তার বাইরেও নিজ উদ্যোগে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে সহায়তা দেওয়ার কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি আরও যোগ করেন: দুর্যোগ আসবে, দুর্যোগের জায়গাই বাংলাদেশ। কিন্তু সেই দুর্যোগ মোকাবেলা করে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। আমি সব সময় যেটা বলি, আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছি, আমরা বিজয়ী জাতি। কাজেই সেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে আমাদের চলতে হবে। করোনাভাইরাস পুরো বিশ্বকেই স্থবির করে দিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন: আজকে এখানে বন্দিখানায় বসে বসে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই অনুষ্ঠনটা আমাদের করতে হল। অথচ প্রতি বছর আমি নিজে উপস্থিত থাকি।
করোনাভাইরাস যেখানে বিশ্বের সব উন্নত ধনী দেশের অর্থনীতিকে চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলে দিয়েছে। সেখানে আমাদের প্রধানমন্ত্রীর এই আশ্বাস দেশের অর্থনীতিতে পুরনো গতি ফিরিয়ে আনবে বলে মনে করি। দেশের অর্থনীতিতে গতি আনা মানে শুধু বিত্তবানদের ক্রমশ বিত্তশালী না করা। দেশের মেধা সম্পদকে কাজে লাগিয়ে মধ্যবিত্ত শ্রেণিকে স্বস্থির ভিতর রাখাও অর্থনৈতিক অগ্রগতি। বাংলাদেশ যেনো থেমে না থাকে।