চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

অন্তর হত্যা মামলার বিচারককে হাইকোর্টে তলব

ফরিদপুরের নগরকান্দার স্কুলছাত্র অন্তর হত্যা মামলায় নেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে ফরিদপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাইনুল ইসলামকে তলব করেছেন হাইকোর্ট।

আগামী ৮ অক্টোবর এই বিচারককে হাইকোর্টে হাজির হয়ে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

আলোচিত এই হত্যা মামলার দুই আসামির জামিন নামঞ্জুরের আদেশের বিরুদ্ধে করা আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করে বুধবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো: মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে আসামিদের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল ও অ্যাডভোকেট নুসরাত ইয়াসমিন।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, ২০১৮ সালের ৭ জুন রাত আটটার দিকে তারাবির নামাজ আদায়ের উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হয় অন্তর। তারপর সে আর বাসায় ফিরেনি।

ওই ঘটনায় ৮ জুন রাতে নগরকান্দা থানায় একটি জিডি করা হয়। এর মধ্যে টাকা চেয়ে ফোন করে অপহরণকারীরা।

বিজ্ঞাপন

পরবর্তীতে অপহরণকারীদের চাহিদামতো ১৪ জুন রাতে ১ লাখ ৪০ হাজার টাকাও দেওয়া হয়। তারপরও সন্তানকে ফেরত না পেয়ে ১৫ জুন নগরকান্দা থানায় একটি মামলা করেন অন্তরের মা।

এর ১৯ দিন পর নগরকান্দা উপজেলার তালমা ইউনিয়নের মানিকদী গ্রামে খালপাড় থেকে মাটিতে পুঁতে রাখা অন্তরের লাশ উদ্ধার করে নগরকান্দা থানা পুলিশ।

নিহত অন্তর তালমা ইউনিয়নের চর মানিকদী পাগলপাড়া গ্রামের গ্রিসপ্রবাসী আবুল হোসেন মাতুব্বরের ছেলে। দুই ভাইয়ের মধ্যে বড় অন্তর তালমা নাজিমউদ্দিন উচ্চবিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল।

অন্তর হত্যা মামলাটি এখন ফরিদুপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন। এই মামলার দুই আসামি আজিজুল শেখ ও আশরাফ শেখ এই ট্রাইব্যুনালে জামিন আবেদন করলে আদালত তাদের জামিন আবেদন নামমঞ্জুর করেন।

এরপর ট্রাইব্যুনালের ওই আদেশের বিরুদ্ধে দুই আসামি হাইকোর্টে জামিন চেয়ে আপিল করেন। সে আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করে এবং বিচারিকে আদালতে হাজির হয়ে ব্যাখ্যা দিতে আদেশ দেন হাইকোর্ট।

আদেশের বিষয়ে আসামিপক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, ‘ফরিদপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাইনুল ইসলাম একদিনে এই মামলার তিন আসামির জবানবন্দি গ্রহণ করেন। যেখানে তিন আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিই প্রায় এক।’

‘‘বিধি বিধানের ব্যত্যয় ঘটিয়ে আসামিদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি গ্রহণের বিষয়টি উল্লেখের পর হাইকোর্ট আগামী ৮ অক্টোবর এই বিচারককে আদালতে হাজির হয়ে এবিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলেছেন। সেই সাথে হাইকোর্ট আসামি আজিজুল শেখ ও আশরাফ শেখের আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেছেন।’’