চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

অনলাইন থেকে গুলিস্তান লাল-সবুজের জার্সিময়

বিশ্বকাপ ক্রিকেটের মঞ্চে মাশরাফী-তামিম-সাকিবরা। ক্রিকেটারদের সমর্থন যোগাতে টাইগারপ্রেমীরাও কম যান না। অনলাইন প্ল্যাটফর্ম থেকে শুরু করে গুলিস্তান হকার্স মার্কেট, পুরোটা জুড়েই বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের লাল-সবুজের জার্সির সমারোহ, সেখানে হুমড়ি খেয়ে পড়েছেন তারা।

সমর্থকরা বলছেন, টাইগারদের পাশে থাকতে, অনুপ্রেরণা দিতেই জাতীয় দলের জার্সি কিনছেন তারা। শুক্রবার দুপুরে গুলিস্তানের পুরো হকার্স মার্কেটে ধুম লেগেছে মাশরাফীদের জার্সি কেনা-বেচায়।

বিজ্ঞাপন

নারায়ণগঞ্জ থেকে জার্সি কিনতে এসেছেন ক্রিকেটপাগল জিএম রাব্বি। তিনি চ্যানেল আই অনলাইনকে জানালেন, ছোট ভাগিনা ও নিজের জন্য জার্সি কিনছেন।

তবে রাব্বি অসন্তুষ্ট জার্সির দাম নিয়ে। বিক্রেতারা যে যেমন দর কষে জার্সি বিক্রি করে চলেছেন। রাব্বির সঙ্গে একমত ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী জুলফিকার আহমেদ।

তিনি বললেন, বেশ কয়েকজন বন্ধু মিলে জাতীয় দলের জার্সি পরে খেলা দেখব, তাই সাত আটটা জার্সি কিনতে গুলিস্তানে আসা। কিন্তু দামের সঙ্গে মিলিয়ে জার্সি পছন্দ হচ্ছে না। পরে বেশ কিছুক্ষণ ঘুরে কাঙ্ক্ষিত দামেই কয়েকটি জার্সি কিনে ফেলেছেন জুলফিকার।

গুলিস্তান হকার্স মার্কেটের বিক্রেতা জামান দাম নিয়ে জানালেন, এখন বিশ্বকাপের মৌসুম, জার্সিতো বেশি বিক্রি হবেই, বেশ সাড়া মিলছে। একটু কম দামি জার্সি হকার্স মার্কেটে ১৫০-৩০০ টাকা, আর দামি জার্সি ৩৫০ থেকে ৪৫০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। প্রতিদিন গড়ে ৫০ থেকে ৬০টি জার্সি বিক্রি হচ্ছে বলেও জানান জামান।

গুলিস্তানের নবারুণ স্পোর্টসে কাজ করেন সাকিব। টাইগারদের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারে নামে নাম এ বিক্রেতা জানালেন, বিশ্বকাপ উপলক্ষে ক্রেতাদের জার্সি কেনার ধুম পড়েছে। উন্নতমানের জার্সি ৫০০ থেকে ৭০০ টাকায় বিক্রি করছেন।

শুধু গুলিস্তান নয়, ডিজিটাল যুগে অনলাইনের বিভিন্ন মাধ্যম থেকেও জার্সি কিনছেন টাইগার ভক্তরা। ক্রিক শপ বিডি, জার্সি ফ্রিক বিডি, জার্সি হাউজসহ অনলাইনে কেনাকাটার বেশকিছু ডিলার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে জার্সি বিক্রির বিজ্ঞাপন দিচ্ছে। ক্রেতারা সেখান থেকেও জার্সি কিনছেন।

জার্সি হাউজের কর্তৃপক্ষ জানালেন, ঈদ মৌসুমে জার্সি বিক্রি করতে তারা হিমশিম খাচ্ছেন। ঈদের মৌসুমে কুরিয়ার সার্ভিসের কাজের প্রেশার এবং আরও কিছু জটিলতার কারণে ডেলিভারি দিতে দেরি হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

অনলাইনে জার্সি কিনে ক্রেতারা অবশ্য খুশিই। জার্সি ফ্রিক বিডি থেকে টাইগারদের জার্সি কিনেছেন সাজ্জাদুর রহমান নামের একজন। বললেন, আমি তৃপ্ত যেমনটা আশা করেছিলাম ঠিক তেমন ফেব্রিক্সের জার্সি দেয়ায় জার্সি ফ্রিক বিডিকে ধন্যবাদ।

ঈদ মৌসুমে ঈদের কেনাকাটার পাশাপাশি জার্সি কিনতেও আগ্রহী ক্রেতারা। শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর পান্থপথের বসুন্ধরা সিটিতে গিয়ে দেখা যায়, স্পোর্টসের দোকান ছাড়াও বিভিন্ন ব্র্যান্ডের দোকানে জার্সি বিক্রি হচ্ছে দেদার।

বসুন্ধরা সিটির এক বিক্রেতারা চ্যানেল আই অনলাইনকে জানালেন, প্রতিদিন গড়ে ৩০-৩৫টি জার্সি বিক্রি করছেন তারা।

বাংলাদেশ দলের অফিসিয়াল জার্সি বিক্রির সত্ত্ব পেয়েছে স্পোর্টস এন্ড স্পোর্টজ। এক বছরের জন্য জার্সি বিক্রির সত্ত্ব পাওয়া প্রতিষ্ঠানটি জানাচ্ছে, পোশাকের ব্র্যান্ড অঞ্জনস ও জেন্টল পার্কের প্রায় শতাধিক আউটলেটে বিক্রি হচ্ছে বাংলাদেশ দলের জার্সি। দাম ১ হাজার ১৫০ টাকা।

থাকছে অনলাইনে কেনার সুযোগও। ক্রিকশপ বিডি ও জার্সি ফ্রিক বিডি, এই দুই অনলাইন প্রতিষ্ঠান তাদের বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে জার্সি বিক্রি করছে।

এছাড়া ডিমানি অ্যাপের মাধ্যমেও ক্রেতারা জার্সি কিনতে পারছেন। আর সারাদেশের ক্রিকেট ভক্তদের মধ্যে জার্সি ছড়িয়ে দিতে আলাদাভাবে কাজ করছে রবিন স্পোর্টস।

ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপ দেখতে যাওয়া দর্শকদের জন্যও ম্যাচ ভেন্যু থেকে বাংলাদেশ দলের জার্সি কেনার সুযোগ থাকছে। প্রবাসী দর্শকরা ইংল্যান্ড ও ওয়েলসের বিভিন্ন জায়গা থেকে জার্সি সংগ্রহ করতে পারবেন।

ম্যাচ ভেন্যু ও ভেন্যুর বাইরে আইসিসির অফিসিয়াল স্টোরেও টাইগারদের জার্সি বিক্রি করছে স্পোর্টস অ্যান্ড স্পোর্টজ।

৩০মে থেকে শুরু হওয়া ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস বিশ্বকাপ চলবে ১৪ জুলাই পর্যন্ত। ১৯৯২ সালের ফরম্যাট ফিরিয়ে আনা হয়েছে এবারের আসরে। ১০ দলের সবাই একে অন্যের বিপক্ষে খেলে সেরা চার দল যাবে সেমিফাইনালে। বিশ্বকাপে বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ ২ জুন, প্রতিপক্ষ সাউথ আফ্রিকা।