চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ
ব্রাউজিং ট্যাগ

মুক্তিযুদ্ধ

এই সেমিনার তরুণ প্রজন্মকে দেশপ্রেমে আগ্রহী করে তুলবে: ড. মিজানুর রহমান খান

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণা সংসদের সচিব অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান খান বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সেমিনার বর্তমান প্রজন্মকে তাদের কি করণীয় এবং দেশপ্রেম, মূল্যবোধ সম্পর্কে আগ্রহী করে তুলবে। তাদের দিবে নতুন দিক নির্দেশনা। বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণরা এসব প্রবন্ধ থেকে শিক্ষা নিয়ে নিজেদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করবে এবং সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে।’ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা গবেষণা সংসদের আয়োজনে ‘বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ: শিল্প, সাহিত্য ও সংস্কৃতির অর্জন’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সেমিনারের সমাপনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। এসময়…

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে কোন সময়সীমা নেই: তুরিন আফরোজ

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ বলেছেন: মুক্তিযুদ্ধের যে সশস্ত্র সংগ্রাম, সে সংগ্রামের একটি নির্দিষ্ট সময়সীমা থাকে। আমরা সেই যুদ্ধে জয় লাভ করেছি ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিষ্ঠার যে লড়াই, সেই লড়াইয়ের কোন নির্দিষ্ট সময়সীমা নেই, সেই লড়াই চালিয়ে যেতে হয় প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে। শুক্রবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা গবেষণা সংসদের আয়োজনে ‘বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ: শিল্প, সাহিত্য ও সংস্কৃতির অর্জন’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন। দেশি-বিদেশি বিভিন্ন…

নিভৃতে শায়িত তিন শহীদের কথা

রাজশাহী শহরের উপকণ্ঠে লক্ষ্মীপুর টিবি হাসপাতাল। হাসপাতালের চত্বরে ঢুকতেই পূর্ব পার্শ্বে নার্সেস হোস্টেল। পাশেই আছে পুকুর। এই হোস্টেলের পাশেই চোখে পড়বে নিতান্ত সাধারণ অবস্থায় অসংরক্ষিত একটি কবর। না গণ কবর। এখানে একই কবরে শুয়ে আছেন মহান মুক্তিযুদ্ধের তিন শহীদ। পথচারীদের কৌতূহল নিবারণের জন্য বেঁচে থাকা মুক্তিযোদ্ধাদের কেউ কেউ বা তাদের কাছ থেকে অবহিত উত্তরসূরি হয়তো এখনো স্মরণে রেখেছেন এই কবরের ইতিকথা। এগিয়ে গেলে দেখা যাবে কবরের ফলকে খোদাই করে লেখা- ” ১৯৭১ সালের ১৪ এপ্রিল বুধবার মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর…

মুক্তিযুদ্ধের সব শহীদেরাই আমাদের পরম চেনা

মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশের অবিস্মরণীয় এক অধ্যায়। আর সেই মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে জড়িয়ে আছে লাখো শহীদের নাম। তাদেরতে নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন প্রবাসী অর্থনীতিবিদ ড. সেলিম জাহান। এক পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘ছবিটি চিরকালই আমার দৃষ্টি কেড়েছে। মাথায় আফগানী টুপি, বক্ষপটের ওপর আড়াআড়িভাবে কার্তুজের বন্ধনী, যার প্রান্তসীমায় খাপে ভরা পিস্তল, পুরো সাদা পোশাকে কোমরে দু’হাত দিয়ে মুখে একটা বেপরোয়া হাসিতে উদ্ভাসিত এক কিশোর-তরুণ। ছবিটি শহীদ মুক্তিযোদ্ধা রুমীর, যার জন্মদিন গেল গতকাল ২৯শে মার্চ। আমার মনে হয় এক সময়ের মানুষের মুখে মুখে ফেরা, প্রতি…

আমাদের বিজ্ঞাপন কি বলছে মুক্তিযুদ্ধের কথা?

‘...বাবু বেঁচে থাকলে বাবুর বয়স হতো পঁয়তাল্লিশ। ওই বয়সের কাউকে দেখলে আমি তাকিয়ে থাকি। বাবুকে খুঁজি। ওর চেহারা কেমন হতো? ও সিঁথি কোন দিকে করতো? ওর কি গোঁফ থাকতো? ওর কি বিয়ে হতো? বাবুর বাবুটা কেমন হতো...!’ টিভির পর্দায় ভেসে ওঠা বিজ্ঞাপনের দৃশ্য আর বর্ণনা দর্শক মাত্রই ফিরিয়ে নিয়ে গেছে একাত্তরের স্বাধীনতা সংগ্রামের সেই উত্তাল দিনগুলোতে। যখন একটি স্বাধীন দেশের আশায় সৃষ্টি-সুখের-উল্লাসে অকাতরে প্রাণ দিয়েছে বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ। কিছু প্রতিশ্রুতি আর অঙ্গীকারকে সামনে রেখে প্রাণের বিনিময়ে অর্জন করেছে স্বাধীন বাংলাদেশ। বিজ্ঞাপনটি…

মুক্তিযুদ্ধে বন্ধুরাষ্ট্রের ভূমিকা

জনযুদ্ধে পরিণত হওয়া মুক্তি সংগ্রামে বাঙালিদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছিল অনেক রাষ্ট্র। এদের মধ্যে কোন কোন রাষ্ট্র শুধু বন্ধুত্বের হাতই বাড়াইনি, প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ভূমিকা রেখেছিল বাঙালির মুক্তিকে ত্বরান্বিত করতে। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক এহসানুল হক চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন: ভারতসহ অন্যান্য বন্ধুরাষ্ট্রগুলোর যে ভূমিকা ছিল তা সত্যিই অনস্বীকার্য। তাদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভূমিকা ছাড়া আমাদের বিজয় অর্জন কঠিন হয়ে যেত। প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় ভারত…

ঘুরে আসতে পারেন ‘স্বাধীনতা অঙ্গনে’

প্রবেশ পথেই মন হারাবেন আপনি। ভূমি অফিসের আঙ্গিনা জুড়ে স্বাধীনতার ঘ্রাণ, মুক্তিযুদ্ধের সরব কথকতা।মনে মনে ভাববেন, ভূমি অফিসের বদলে অন্য কোথাও এলাম নাকি! ঠিক এমনই অনুভূতি দেবে যশোরের অভয়নগরের উপজেলা ভূমি অফিস। দেশের প্রথম এবং একমাত্র ভূমি অফিস হিসেবে অভয়নগরে গড়ে তোলা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক থিমপার্ক- স্বাধীনতা অঙ্গন। আমি যখন অভয়নগরের সহকারী কমিশনার ভূমি বা এসি ল্যান্ড। তখনই এমনি কিছু করার চিন্তা আসে। ব্যক্তিগত উদ্যোগ আর উপজেলার সর্বস্তরের মানুষের প্রতক্ষ্য অংশগ্রহণে মাত্র ১ মাসেই গড়ে তোলা হয় অনন্য এই পার্কটি। মূলত তরুণ…

খেতাব না পাওয়ার আক্ষেপ নিয়েই চলে গেলেন কাঁকন বিবি

খাসিয়া সম্প্রদায়ের নারী কাঁকন বিবি। নিজের এলাকায় 'মুক্তি বেটি' নামে পরিচিত এই বীর মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযুদ্ধে চলাকালে পাক বাহিনী আর রাজাকারদের হাতে বারবার নির্যাতিত হয়েছেন। তবু দমে যাননি এই নারী। পাকবাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়েছেন সম্মুখ সমরে। বুধবার রাতে ৮৮ বছর বয়সে ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য বীরপ্রতিক খেতাব পেয়েছিলেন কাঁকন বিবি। ১৯৯৬ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে বীরপ্রতীক উপাধিতে ভূষিত করার ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু তা আর গেজেট আকারে প্রকাশিত হয়নি।…

যুদ্ধদিনের স্মৃতি নিয়ে মহাকাব্যিক গ্রন্থ ‘গেরিলা থেকে সম্মুখযুদ্ধে’

যুদ্ধদিনের স্মৃতি আর যুদ্ধের গভীরতার প্রতিফলনে এক মহাকাব্যিক গ্রন্থ ‘গেরিলা থেকে সম্মুখযুদ্ধে’। মুক্তিযোদ্ধা গেরিলা কমান্ডার মাহবুব আলম তার বইয়ে তুলে এনেছেন নিজেরসহ জনযোদ্ধাদের কথা। মুক্তিযোদ্ধা মাহবুব আলম ছিলেন যুদ্ধকালীন সময়ে ৬ নম্বর সেক্টরের একজন গেরিলা কমান্ডার। যুদ্ধ সময়ের অভিজ্ঞতার পুরোটা তুলে ধরেছেন দুই খণ্ডে প্রকাশিত ‘গেরিলা থেকে সম্মুখযুদ্ধে’ বইয়ে। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সাহিত্যে বইটি আছে অনন্য এক অবস্থানে। বইটিতে মাহবুব আলম তুলে ধরেছেন তার গেরিলা থেকে সম্মুখযুদ্ধে অংশ নেয়ার কথা। যুদ্ধদিনের সবকিছু…