চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

টাইব্রেকারে ব্রাজিলের বিদায়, সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়া

Nagod
Bkash July

একের পর এক গোলের সুবর্ণ সুযোগ হাতের কাছে এসেও দিচ্ছিল না ধরা। নির্ধারিত সময় পেরিয়ে যায়। গড়াতে থাকে অতিরিক্ত সময়ও। নিজেকে স্মরণীয় করতে তেমন মুহূর্তে সবটুকু আলো নিজের দিকে কেড়ে নেন নেইমার। আসে ব্রাজিলের নাম্বার টেনের পেলের রেকর্ড ছোঁয়া গোল। পরে ব্রুনো পেতকোভিচের গোলে ম্যাচে ফেরে সমতা। শেষে রুদ্ধশ্বাস টাইব্রেকারে ৪-২ ব্যবধানে হেরে কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিয়েছে ব্রাজিল। আসরে প্রথম দল হিসেবে সেমিফাইনালে পৌঁছে গেল গতবারের রানার্সআপ ক্রোয়েশিয়া।

Reneta June

লুসেইল স্টেডিয়ামে রাতের দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনালে খেলবে আর্জেন্টিনা ও নেদারল্যান্ডস। জয়ী দলটি সেমিতে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে খেলবে।

শুক্রবার এডুকেশন সিটি স্টেডিয়ামে প্রথম কোয়ার্টারের পঞ্চম মিনিটে পোস্ট বরাবর শট নেন ভিনিসিয়াস জুনিয়র। দূরপাল্লার শটটি অবশ্য ক্রোয়েশিয়ার গোলরক্ষক ডমিনিক লিভাকোভিচের লুফে নিতে বেগ পেতে হয়নি।

আট মিনিট পর মারিও পালাসিচের পাসে গোলমুখে বল পান ইভান পেরিসিচ। ডান পায়ে ঠিকঠাক কিক নিতে ব্যর্থ হওয়ায় গোলের দেখা পাননি। রিচার্লিসনের অ্যাসিস্টে বল নিয়ে ২০ মিনিটে ডান পায়ে মাপা শট নিয়েছিলেন নেইমার। ক্রোয়েট ডিফেন্ডার জসকো গ্যাভারিওল শট ব্লক করেন। কয়েক সেকেন্ড পর ব্রাজিলিয়ান থিয়াগো সিলভার কাছ থেকে বল পাওয়া নেইমারের বাঁ-প্রান্ত হতে নেয়া শট খানিকটা সামনে ঝাঁপিয়ে ধরে ফেলেন লিভাকোভিচ।

ম্যাচের ৪১ মিনিটে বক্সের একদম কাছে ভিনিসিয়াস ফাউলের শিকার হন। ফ্রি-কিক পায় ব্রাজিল। সেট পিস থেকে নেইমারের শট সরাসরি লিভাকোভিচের হাতে চলে যায়। গোলশূন্য প্রথমার্ধে খুব বেশি সুযোগ তৈরি হয়নি। ব্রাজিলের নেয়া পাঁচ শটের তিনটি লক্ষ্য বরাবর ছিল। তিনটি শট ক্রোয়েশিয়া নিতে পারলেও কোনোটিই পোস্ট লক্ষ্য করে মারতে পারেনি।

পরে ৪৭ মিনিটে এডের মিলিতাওয়ের নিচু শট বিপদমুক্ত করতে গিয়ে নিজেদের জালেই জড়িয়ে দিচ্ছিলেন গ্যাভারিওল। পা দিয়ে বল ঠেকিয়ে দেন তৎপর লিভাকোভিচ। পরের মিনিটে নেইমারের কিক গ্যাভারিওল ব্লক করার পর বল পান রিচার্লিসন। তার শট আবারও লিভাকোভিচ প্রতিহত করেন। যদিও লাইন্সম্যান অফসাইডের পতাকা তুলেছিলেন।খেলার ৫৫ মিনিটে রিচার্লিসনের পাসে বল নিয়ে নেইমারের বাঁ-পায়ের শটও লিভাকোভিচ পা দিয়ে ঠেকিয়ে জাল অক্ষত রাখেন। লুকাস পাকুয়েতা গোলমুখে ৬৬ মিনিটে দারুণ সুযোগ পান। সামনে এগিয়ে এসে তার কিক হাত দিয়ে ফিরিয়ে দেন লিভাকোভিচ। একের পর এক সেভ করে যেন তিনি হয়ে ওঠেন ক্রোয়েশিয়ার প্রাচীর।

ম্যাচের ৭৬ মিনিটে রিচার্লিসনের বাড়ানো বল নিয়ে ক্ষিপ্র গতিতে নেইমার বক্সের ভেতর ঢুকে পড়েন। ব্রাজিলিয়ান তারকা বাঁ-পায়ের শট নেয়ামাত্র তার পায়ের কাছে গিয়ে শুয়ে পা দিয়ে ক্রোয়েট গোলরক্ষক বল মাঠের বাইরে পাঠান।

মিনিট চারেক পর ভিনিসিয়াসের বদলি নামা রদ্রিগোর পাসে বল পাওয়া পাকুয়েতার শটও লিভাকোভিচ অনায়াসে সামনে ঝুঁকে ধরে ফেলেন। ব্রাজিলের একের পর এক আক্রমণ তিনি এভাবেই রুখে দিতে থাকেন। নির্ধারিত সময়ে কোনো দল গোলের দেখা পায়নি। ম্যাচ অতিরিক্ত সময়ে গড়ায়।

তাতে ১০১ মিনিটের মাথায় থিয়াগো সিলভার ক্রসে বল নিয়ে বক্সের ভেতর বাইসাইকেল কিক করতে পারেননি পেদ্রো। বল তার পায়ে লেগে লিভাকোভিচের গ্লাভসবন্দি হয়। দুই মিনিট পর পেতকোভিচ বাঁ-প্রান্ত থেকে দুজনকে কাটান। পরে আরও দুজনকে কাটিয়ে বক্সে ঢুকে পাস দেন। বাজে শটে পোস্টের অনেক উপর দিয়ে বল মাঠের বাইরে পাঠান ব্রোজোভিচ।

অতিরিক্ত সময়ের প্রথমার্ধ শেষের আগমুহূর্তে ডেডলক ভাঙেন নেইমার। সতীর্থ পাকুয়েতার পাসে বল নিয়ে ছয় গজ দূর থেকে ডান পায়ের শটে তিনি বল জালে জড়িয়ে ব্রাজিলকে উল্লাসে ভাসান।

সেলেসাও জার্সিতে ১২৪ ম্যাচে ৭৭ গোলের মালিক এখন নেইমার। কিংবদন্তি ও ব্রাজিলের তিন বিশ্বকাপজয়ী পেলে জাতীয় দলের হয়ে ৯২ ম্যাচে ৭৭ গোল করেছিলেন। দীর্ঘ ৫১ বছর ধরে সেলেসাওদের হয়ে তিনি ছিলেন এককভাবে সর্বাধিক গোলের মালিক। তাকে স্পর্শ করলেন নেইমার।

নাটকীয়তার তখনো বাকি ছিল। ১১৭ মিনিটে মিলাভ অরসিচের অ্যাসিস্টে বল নিয়ে বাঁ-পায়ের বুলেট গতির শটে গোল করে সমতা টানেন ব্রুনো পেতকোভিচ। রেফারির শেষ বাঁশি বাজার কয়েক সেকেন্ড আগে কাসেমিরোর শট লিভাকোভিচ ঠেকালে ম্যাচ টাইব্রেকারে গড়ায়।

ক্রোয়েশিয়ার হয়ে প্রথম শটে নিকোলা ভ্লাসিচ গোল পেলেও ব্রাজিলের রদ্রিগোর শট ঠেকান লিভাকোভিচ।

দ্বিতীয় ও তৃতীয় কিকে ক্রোয়েটদের হয়ে বল জালে জড়ান লভরো মাজের ও লুকা মদ্রিচ। ব্রাজিলের হয়ে লক্ষ্যভেদ করেন কাসেমিরো এবং পেদ্রো।

চতুর্থ শটে মিলাভ অরসিচ গোল জালে রাখলেও মার্কুইনহোসের কিক বারে লেগে ফিরে আসলে ব্রাজিলের হেক্সা জয়ের মিশনের কান্নাভেজা সমাপ্তি ঘটে।

BSH
Bellow Post-Green View