চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ
Partex Group

পথের কাঁটা সরানোর এখনই সময়

Nagod
Bkash July

সম্প্রতি চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশ সফর করে গিয়েছেন। চীনের সাথে বাংলাদেশের চারটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। চীনের সাথে আমাদের বাণিজ্য ঘাটতি বিশাল হলেও আমরা চীনা পণ্যের ওপর নির্ভরশীল। বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারির পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ সামাজিক রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সংকটে নতুন মাত্রা সৃষ্টি করেছে। সারা বিশ্বে অর্থনীতি একটা বড়সড় ধাক্কা দিল। এই প্রেক্ষিতে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে এখন চরম সংকট কাল চলছে। সরকার নানাভাবে কৃচ্ছ্রতা সাধন করছে। মাঝখানে জ্বালানি তেলের দামও বাড়লো। দেশের এখন নাভিশ্বাস। এর মধ্যে মড়ার ওপর খাড়ার ঘা হিসেবে ১১ লাখ রোহিঙ্গার উৎপাত আমাদের ভাবিয়ে তুলছে। চীনের কাছে রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে ভূমিকা রাখবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন। এদিকে রোহিঙ্গাদের উপস্থিতি এই অঞ্চলকে অস্থিতিশীল করে তুলেছে। ক্যাম্পগুলোতে চলছে অরজকতা। মাদক ব্যবসা থেকে হানহানি প্রায় প্রতিদিনই রোহিঙ্গা ক্যাম্পের খবর।

চ্যানেল আই অনলাইনে প্রকাশিত সংবাদে জানা যায়: কক্সবাজারে টেকনাফের নয়াপাড়া নিবন্ধিত শরণার্থী শিবির সংলগ্ন পাহাড়ী এলাকায় ‘আধিপত্য বিস্তারের জেরে’ রোহিঙ্গাদের দুই দলের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনায় নিহত একজনের গুলিবিদ্ধ মৃতদেহ উদ্ধার করেছে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন। এতে ঘটনায় জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করেছে পুলিশ। রোহিঙ্গা শিবিরে নিরাপত্তায় নিয়োজিত ১৬ এপিবিএন এর অধিনায়ক এডিআইজি হাসান বারী নুর জানান: রোববার সন্ধ্যায় টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের নয়াপাড়া নিবন্ধিত রোহিঙ্গা শিবির সংলগ্ন পাহাড়ী এলাকায় গোলাগুলির এ ঘটনা ঘটে। নিহত মো.ইব্রাহিম (৩০) টেকনাফের নয়াপাড়া নিবন্ধিত রোহিঙ্গা শিবিরের সি-ব্লকের বাসিন্দা আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে। তবে আটক ব্যক্তির নাম ও পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেননি তিনি। এপিবিএন জানিয়েছে: ইব্রাহিম এক সময় রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী ‘জকির বাহিনীর’তে সক্রিয় ছিল। স্থানীয়দের বরাতে এডিআইজি হাসান বারী নুর বলেন: রোববার সন্ধ্যায় টেকনাফের নয়াপাড়া নিবন্ধিত রোহিঙ্গা শিবির সংলগ্ন পাহাড়ী এলাকায় দুই সন্ত্রাসী দলের মধ্যে গোলাগুলির খবর দেয় স্থানীয়রা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। এসময় ঘটনাস্থল থেকে একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।গুলিবিদ্ধ ইব্রাহিমকে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হয়। তার অবস্থা আশকাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখান আনা হলে হাসপাতালে পৌঁছার আগেই তার মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছেন জরুরী বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক।

রোহিঙ্গাদের ক্রমবর্ধমান হানাহানি খুনখারাপি এই অঞ্চলকে আরও বেশি ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিচ্ছে। সরকারের উচিত রোহিঙ্গা বিষয়ে জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক উদ্যোগ গুরুত্বের সঙ্গে কার্যকর করা। এই সংকট নিরসনে মিয়ানমারের মিত্র চীনকে কাজে লাগানো। গত কয়েক দশকের মধ্যে বিশ্ব এখন মারাত্মক অর্থনৈতিক সংকটে পতিত। তার ধাক্কা বাংলাদেশেও লেগেছে। এর থেকে একে একে বের হয়ে আসার পথে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন একটি অন্যতম সমাধান। আমরা আশা করি সরকার খুব দ্রুতই চীনকে দিয়ে এই সুযোগ কাজে লাগাবে।

BSH
Bellow Post-Green View