চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সারাবিশ্বে করোনায় আরও ৮২৭ জনের মৃত্যু

বিশ্বে করোনাভাইরাসে ২৪ ঘণ্টায় আরও ৮২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় রোগী শনাক্ত হয়েছে চার লাখ ৪২ হাজার ৭৯১ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে জার্মানিতে। অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে তাইওয়ান। আগের দিন দৈনিক সংক্রমণে জার্মানি আর মৃত্যুর তালিকায় শীর্ষে ছিল যুক্তরাষ্ট্র।

Reneta June

রোববার (২৬ জুন) সকালে বৈশ্বিক পর্যায়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার আপডেট দেওয়া ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

বিজ্ঞাপন

ওয়ার্ল্ডোমিটারস তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে এ পর্যন্ত মোট মৃত্যু বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৩ লাখ ৫০ হাজার ২৪০ জন। এছাড়া এ পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৫৪ কোটি ৮৬ লাখ ৪০ হাজার ৩৭৭ জন।

জার্মানিতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৮৯ হাজার ৩৩৬ জন এবং মারা গেছেন ৮৪ জন। এ সময়ে সবচেয়ে বেশি ১৫১ জনের মৃত্যু হয়েছে তাইওয়ান।

যুক্তরাষ্ট্রে একদিনে শনাক্ত হয়েছেন ৪৩ হাজার ৬৬৭ জন এবং মারা গেছেন ৬২ জন। দেশটিতে এ পর্যন্ত ৮ কোটি ৮৭ লাখ ৭৭ হাজার ৫৫৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১০ লাখ ৪০ হাজার ৭৯২ জন মারা গেছেন। আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় ও মৃত্যুর সংখ্যায় তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ১৩৬ জন এবং সংক্রমিত হয়েছেন ৩১ হাজার ২৩০ জন। দেশটিতে এ নিয়ে মোট শনাক্ত তিন কোটি ২০ লাখ ৬১ হাজার ৯৫৯ জন এবং মারা গেছেন ছয় লাখ ৭০ হাজার ৪১৮ জন।

রাশিয়ায় একদিনে মৃত্যু হয়েছে ৬১ জনের এবং নতুন সংক্রমিত তিন হাজার ৭২ জন। আক্রান্তের দিক থেকে দ্বিতীয় ও মৃত্যুর সংখ্যায় তালিকার তৃতীয় অবস্থানে থাকা প্রতিবেশী দেশ ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩১ হাজার ২৩০ জন সংক্রমিত হয়েছেন। দেশটিতে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন চার কোটি ৩৩ লাখ ৯১ হাজার ৩৩১ জন এবং মারা গেছেন পাঁচ লাখ ২৪ হাজার ৯৭৪ জন।

জাপানে আক্রান্ত হয়েছেন ১৬ হাজার ৬৪ জন এবং মারা গেছেন ১৬ জন। অস্ট্রেলিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৭ হাজার ৯৯৯ জন এবং মারা গেছেন ৫৭ জন। থাইল্যান্ডে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ২৩৬ জন এবং মারা গেছেন ১৬ জন। চিলিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১২ হাজার ৬৩৭ জন এবং মারা গেছেন ৩৯ জন।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ২০২০ সালের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনাকে ‘বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে।