চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

চার দেশের শিল্পী মিলে তৈরী হলো এক গান

বাংলাদেশ, যুক্তরাষ্ট্র, আর্জেন্টিনা ও অস্ট্রিয়ার মিউজিশিয়ানরা মিলে তৈরী করেছেন একটি গান! বাংলা-হিন্দি মিশ্রিত গানটির নাম ‘ভোপাল’। মূলত সফট, ক্লাসিক্যাল এবং আরএনবি ঘরানার গান এটি। 

সদ্য খান এর সুর ও কথায় গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন বাংলাদেশের তিন তরুণ কণ্ঠশিল্পী সদ্য খান, রংগন হৃদ্য এবং জাওয়াদ খালিদ। গানটির সংগীত প্রযোজনা করেছেন মোহাম্মদ সালাউদ্দিন।

আর্জেন্টাইন বংশদ্ভূত লুসিয়ানো পিজ্জিচিনি (জনপ্রিয় গিটার কোম্পানি গিবসন গিটার এর ব্যান্ড অ্যাম্বাসেডর), মার্কিন ম্যাথিউ মেয়রস (এমটিডি, জি.এইচ.এস স্ট্রিংস,সুনামি ক্যাবলস এর ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর) এবং অস্ট্রিয়ান এলেক্স সিডলার গিটার বাজিয়েছেন গানটিতে। যা ইতিমধ্যেই সকল আন্তর্জাতিক স্ট্রিমিং প্লাটফর্মে প্রকাশ পেয়েছে। যে বিষয়গুলো দেখভাল করছে আমেরিকান মিউজিক ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি কোয়ান্টাইজ মিউজিক এন্টারটেইনমেন্ট।

বিজ্ঞাপন

কোলাবরেশনটির মূল ব্যবস্থাকারী সংগীতশিল্পী এবং গীতিকার জাওয়াদ খালিদ বলেন, চারটি দেশের সমন্বয়ে করা এই গানটি আশা করছি শ্রোতাদের মনে জায়গা করে রাখবে। একজন বাংলাদেশি হিসেবে খুবই ভালো লাগছে এবং গর্ব অনুভব করছি আমরা। আমরা চাই বাংলা ভাষা এবং মিউজিক যাতে পৃথিবীর সকল স্থানে জায়গা করে নেয়। মূলত এমন উদ্দেশ্য থেকেই এমন কোলাবরেশনের উদ্যোগ।

ম্যাথিউ মেয়রস ,লুসিয়ানো পিজ্জিচিনি এবং এলেক্স সিডলারের বরাতে জাওয়াদ জানান, তারা গানটিতে কাজ করে খুবই খুশি হয়েছেন। ভবিষ্যতেও তারা সুযোগ পেলে এমন ভাবে কাজ করতে নিজেদের আগ্রহের কথা জানিয়েছেন। নভেম্বরের মাঝামাঝির দিকে গানটির লিরিক্যাল ভার্সন প্রকাশ পাবে জাওয়াদ খালিদের অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে।

বিদেশী শিল্পীদের সাথে যোগাযোগের অভিজ্ঞতা জানতে চাইলে তিনি জানান, আমার সাথে সোশাল মিডিয়ার মাধ্যমে আলাপ হয় তাদের। আমি লুসিয়ানোর ভিডিও দেখেছি ইউটিউবে। খুব ছোট থেকেই এই ছেলেটি অসাধারণ গিটার প্লে করে। সেই থেকেই মনে হলো যে ওর সাথে একটি কোলাব প্রজেক্ট করা যায়! আর ম্যাথুউ এবং এলেক্স দুজনই আগে থেকেই আমার ফ্রেন্ডলিস্টে ছিলো সেই সুবাধে আমি যখন তাদেরও বলি প্রজেক্টির বিষয়ে তারাও রাজি হয়ে যায়।

জাওয়াদ বলেন, আগে থেকেই গানের লিরিক্স আর টিউন করে রেখেছিলো সদ্য। কিন্তু আমরা পারফেক্ট ফিমেল ভয়েস খুঁজে পাচ্ছিলাম না। তখন সদ্য তার ছোট বোন হৃদ্যকে আমাদের সাথে নিয়ে নেয়। তারপর মোহাম্মদ সালাউদ্দিন মিউজিক করা শুরু করে দেয় এবং সেখান থেকেই ধাপে ধাপে আমাদের প্রজেক্টটি এগিয়ে যায় এবং অবশেষে একটি পরিপূর্ণ গানে রূপান্তরিত হয়।

বিজ্ঞাপন