চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সীমান্তে মিয়ানমারের সেনাসমাবেশ: সুতরাং সাবধান!

মাত্র কদিন আগেই বিশ্বের তিন নোবেল বিজয়ী নারী বাংলাদেশে এসে রোহিঙ্গাদের অসহনীয় কষ্টের কথা জেনে সহমর্মিতা প্রকাশ করেছেন। তাঁরা সবাই শান্তিতে নোবেল পেয়েছেন। রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে সূচির ভূমিকায় হতাশ হয়েছেন। তীব্র নিন্দা প্রকাশ করেছেন।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের নারী সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়ে তারা বলেছেন-  রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম যথাযথ ভূমিকা পালন করতে ব্যর্থ হয়েছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে গণমাধ্যম নিজ নিজ দেশের সরকারের অবস্থান অনুযায়ী সংবাদ প্রকাশ করেছে। সে কারণে এই শতাব্দীর বর্বরতম একটি অধ্যায় বিশ্বের অনেকের কাছে অজানা থেকে গেছে।

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথাটি বলেছেন নোবেল বিজয়ী ম্যারেইড ম্যাগুয়ার। তিনি বলেছেন, যুক্তরাজ্য সরকার মিয়ানমারে গণতন্ত্র প্রচুর অর্থ দিয়েছে। সেই টাকা দিয়ে মিয়ানমার সমরাস্ত্র কিনেছে। সেনাবাহিনীর শক্তিমত্তা আরও বাড়িয়েছে। তা দিয়ে মিয়ানমার রোহিঙ্গা নিধন করেছে।
আমরা পত্রিকায় যখন পড়ি রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবর্তনের ব্যাপারে বাংলাদেশ-মিয়ানমারের সাথে আলোচনা হয়েছে, এবং ধীরে ধীরে এই প্রক্রিয়া চালু হবে, তখন মনে সন্দেহ উঁকি দেয়। আসলেই কি মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ফেরত নেবে? নাকি লোক দেখানো এ বৈঠক প্রহসনমাত্র।

সম্প্রতি দেখলাম বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির তমব্রু সীমান্তের ওপারে দেড় শ’ গজের মধ্যে ভারী অস্ত্রসহ অতিরিক্ত সেনাসমাবেশ ঘটিয়েছে মিয়ানমার। এর ফলে ওই সীমান্তের আশ্রয় নেয়া পাঁচ হাজার রোহিঙ্গার মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

এ ঘটনার পর আমাদের সরকার মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে প্রতিবাদ জানিয়েছে। দু দেশের সীমান্তরক্ষীদের মধ্যে পতাকা বৈঠক হয়েছে। এটা কিসের আলামত? এই আলামত কি প্রমাণ করে না যে, মিয়ানমার সরকার একজন রোহিঙ্গাকেও তাদের দেশে থাকতে দেবে না? যারা ওই সীমান্তে এখনো ফিরে যাবার আশায় দিনাতিপাত করছে তাদেরকে বাঙালি বলে বাংলাদেশে চলে যাবার জন্য ভয় দেখাচ্ছে?

বিজ্ঞাপন

ইতিমধ্যে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী রাখাইন অঞ্চলকে রোহিঙ্গামুক্ত করার জন্য নানাভাবে কৌশলে সাড়ে ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে বিদায় করেছে। তারা যতই বৈঠক করুক নানা চাপে পড়ে, সেগুলো কার্যত কোনো লাভ হবে বাংলাদেশের।

এমতাবস্থায় আমাদেরকে যারা বন্ধু বলে প্রচার করে, তাদের সাথে নিয়ে বিশ্ব অঙ্গনের মোড়লদের দৃষ্টিগোচর করা যে, মিয়ানমারের এই সীমান্তে সেনাসমাবেশ মানে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করা। সুতরাং দ্রুত এই শক্তি প্রদর্শন বন্ধ করতে হবে। পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের ফেরত নেবার ব্যাপারে কার্যকর জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

আর এটা করা না গেলে সারাজীবন এই ধরনের যন্ত্রণায় থাকতে হবে বাংলাদেশকে। বিশ্ববাসী যতই বাহবা দিক না কেন- বাংলাদেশ মানবতা দেখিয়েছে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে, তাতে আমাদের খুব বেশি কাজে আসবে না। আমাদের দেশের ভেতরকার অস্থিরতা বাড়িয়ে ওই ধরণের প্রশংসামূলক উচ্চারণ শোনা হিতে বিপরীতই হবে। আমাদের ভেতরে সহিংসতা বাড়াবে। আমাদের রাজনৈতিক অস্থিরতার আগুনে একটু ঘি ঢেলে দেয়া ছাড়া আর কোনো কাজই হবে না। এখনই আমাদের সজাগ থাকতে হবে। রোহিঙ্গারা যাতে দেশের নানা স্থানে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেই ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে রাখতে হবে সতর্ক প্রহরায়।

(এ বিভাগে প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব। চ্যানেল আই অনলাইন এবং চ্যানেল আই-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে প্রকাশিত মতামত সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে।)

Bellow Post-Green View