চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সাকার ন্যায়বিচারের দাবি পূরণ

‘আমি রাজাকার, আমার বাপ রাজাকার, পারলে তোরা বিচার করিস!’ দেশের সর্বোচ্চ আদালত এই দাম্ভিক উক্তির জনক ঘৃণ্য যুদ্ধাপরাধী সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর মৃত্যুদণ্ডের রায় বহাল রেখেছেন।

বছর দুয়েক জেলে থাকার পর চট্টগ্রামের এই কসাই বলেছিলো- ‘দুই বছর জেলে রাখসস, বাইর হইয়া নেই!’

দাম্ভিকতায় যদি র‌্যাঙ্কিং করা হয় তাহলে এই যুদ্ধাপরাধী বোধকরি উপরের দিক থেকে এক নাম্বারেই থাকবে। জেল থেকে বের হওয়ার আশা মনে হয় তার আর পূরণ হচ্ছে না।

তবে সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের আগের দিন তিনি ন্যায়বিচার প্রার্থনা করেছিলেন। তার সেই আশা অবশ্য পূরণ হয়েছে বলেই মনে হচ্ছে। মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখেছেন আদালত। এই রায়ের মধ্য দিয়ে তার দম্ভ ও অহঙ্কারের পতন হচ্ছে বলেই প্রতীয়মান হয়।

ভয়ংকর সাম্প্রদায়িক এই রাজাকার নিজের ‘চৌধুরী’ বংশের অহঙ্কারে এতোটাই নির্লজ্জ ছিলেন যে তৎকালীন ছাত্রলীগ নেতা, চট্টগ্রামের মুক্তিযোদ্ধা বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরীকে ধরে নিয়ে গিয়ে নামের সাথে ‘চৌধুরী’ থাকায় বলেছিলেন ‘গোলামের পুত গোলাম, চৌধুরী হইলি কবে!’ ভাবখানা এমন ‘চৌধুরী’ কেবল সে আর তার পরিবারের জন্য বরাদ্দ!

তাদের চট্টগ্রামের বাড়িটি মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে ছিল বন্দীশালা। মুক্তিযোদ্ধাদের ধরে নিয়ে এসে সেখানে অত্যাচার করা হতো, হত্যা করা হতো। এছাড়া রাউজানের খ্যাতিমান শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ নূতন চন্দ্র সিংহকে হত্যার বিষয়টি সবারই জানা।

এই লোক এতটাই বাংলাদেশবিরোধী ছিলো, বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে তিনি ভারতের দান মনে করতেন। ভারতের নাম তিনি কোনোদিন ভারত বলেননি, বলেছেন হিন্দুস্তান! যুদ্ধাপরাধের মামলায় তাকে জেলে নেয়া হলে তিনি বলেছিলেন, ‘কলকাতার জেলে আমাকে রাইখেন না!’ এ থেকেই বুঝা যায় এই নির্লজ্জ যুদ্ধাপরাধী বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী ছিলেন না।

স্বাধীন বাংলাদেশের সংসদে দাঁড়িয়ে তিনি নানান সময়ে এমন সব মন্তব্য করেছেন, যা কোনো সভ্য সমাজে গ্রহণযোগ্য নয়। তার ‘সোনা’ বিষয়ক সেই উক্তি এতোটাই জঘন্য, এই লেখায় সেটি ব্যবহার করার রুচি পর্যন্ত হচ্ছে না।

আর এতোসব অপরাধের সাথে যিনি জড়িত তার জন্য একমাত্র ন্যায়বিচার তো মৃত্যুদণ্ডই হওয়ার কথা! তাই সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ন্যায় বিচারের আবদার পূরণ হয়েছে বলাই যায়। এই ঘৃণ্য যুদ্ধাপরাধী অবশ্য একাত্তর সালে কোনো বিচারের ধার ধারেননি; মুক্তিযোদ্ধাদের হত্যা করেছেন ভয়ংকর অত্যাচারের মাধ্যমে!

এই যুদ্ধাপরাধী স্বাধীন বাংলাদেশে গডফাদার হিসেবেও আবির্ভূত হয়েছিলেন। চট্টগ্রামের ত্রাস হিসেবেই তিনি পরিচিত ছিলেন। বাংলাদেশকে অস্বীকার করেও যেসব কথিত এলিট ফ্যামিলির লোকজন দেশটাকে বাপের তালুক মনে করে যা ইচ্ছে তাই করে বেড়াচ্ছিলো, তার সব চাইতে বড় উদাহরণ সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী। ফাঁসির রায় উচ্চ আদালতেও বহাল থাকায়, সেইসব কথিত এলিট ফ্যামিলির হাত থেকে বাংলাদেশকে মুক্ত করার প্রথম ধাপ মনে হয় এটাই।

(এ বিভাগে প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব। চ্যানেল আই অনলাইন এবং চ্যানেল আই-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে প্রকাশিত মতামত সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে।)

Bellow Post-Green View