চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সঞ্চয়পত্রের সুদ কমায় বিনিয়োগ যেতে পারে প্রতারণা স্কিমে

সঞ্চয়পত্রের মুনাফা হঠাৎ করে কামানোর ঘোষণা দিয়েছে সরকার। মুনাফা কমানোয় অখুশি পেনশনারসহ সমাজের নির্ধারিত আয়ের সাধারণ মানুষ। রাষ্ট্রের এই পদক্ষেপ তাদের জীবনযাত্রা কঠিন করে তুলবে বলে অভিযোগ করেছে তারা।

মঙ্গলবার অর্থ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগকারীদের ক্ষেত্রে আগের সুদ হার বহাল থাকছে। তবে ১৫ থেকে ৩০ লাখ পর্যন্ত কিছুটা কম, আর ৩০ লাখের বেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য মুনাফা আরও কমানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

চাকরি শেষে নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ, বিদেশ ফেরত প্রবাসীর জমানো টাকাসহ নানা শ্রেণিপেশার মানুষের নিশ্চিত ও নিরাপদ আয় হিসেবে সঞ্চয়পত্র বেশ পরিচিত। বহু মানুষ আছেন দেশে, যাদের নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা আছে কিন্তু সেই টাকা ব্যবহারের ক্ষমতা-বুদ্ধি-দক্ষতা নেই, তাদের আয়ের বেশ বড় উৎস সঞ্চয়পত্র। হঠাৎ করে ওইসব মানুষ সমস্যার মুখে পড়েছে।

বিজ্ঞাপন

উন্নতদেশগুলোতে স্টক মার্কেট ও রাষ্ট্রীয় বন্ড সেসব দেশের জনগণের বিনিয়োগের একটি অন্যতম ক্ষেত্র হয়ে থাকে। কিন্তু দু:খজনক হলেও সত্য যে, অতীত অভিজ্ঞতায় দেশের স্টক মার্কেটের উপরে সেভাবে নেই জনআস্থা। রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ বহু মানুষের ভাষায় স্টক মার্কেট জুয়া-ফটকা বাজার। বাকি থাকে সঞ্চয়পত্রের মতো নিরাপদ বিনিয়োগ ব্যবস্থা, সেটিও বিগত কয়েক বছর হলো ধাপে ধাপে অবমূল্যায়িত হচ্ছে।

সাম্প্রতিক সময়ে ই-কমার্সের আদলে নানা স্কিমে দেশের জনগণের হাজার হাজার কোটি টাকা প্রতারণা করে হাতিয়ে নিয়েছে বেশ কয়েকটি চক্র। সহজে অর্থ আয় আর অল্পসময়ে বেশি মুনাফার আশায় বহু মানুষ প্রতারণার ফাঁদে পা দিয়েছিল। অনেকে তাদের জমানো টাকাও বিনিয়োগ হিসেবে ওইসব প্রতারণা স্কিমে লাগিয়ে সর্বহারা।

আমাদের শঙ্কা, সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমানোর ফলে ব্যবসা না বোঝা ও সাধারণ জনগণ তাদের অর্থ নিয়ে এক দিকবিভ্রান্ত পরিস্থিতিতে পড়বে। সেই সুযোগে প্রতারণার ডালপালা আরও বিস্তৃত হতে পারে। জনস্বার্থে এ বিষয়ে সরকারের ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আরও মনোযোগী হওয়া উচিত বলে আমরা মনে করি।

বিজ্ঞাপন