চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সংবিধানের সাম্প্রদায়িক ধারা বাতিলের দাবিতে গণসমাবেশ

সংবিধান থেকে সাম্প্রদায়িক ও অগণতান্ত্রিক ধারাসমূহ বাতিল, জামায়াত-শিবিরসহ ধর্মভিত্তিক সকল রাজনীতি নিষিদ্ধকরণসহ কয়েক দফা দাবিতে রাজধানীতে সমাবেশ করেছে ‘বাহাত্তরের সংবিধান পুনঃপ্রতিষ্ঠা জাতীয় কমিটি’।

বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে চারটায় শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে গণসমাবেশ ও মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, বারবার দাবি করা সত্ত্বেও এবং উচ্চ আদালতের সুনির্দিষ্ট রায়ের পরও মহান সংবিধানে সাম্প্রদায়িক ধারাগুলো এখনও বাতিল করা হয়নি। মুক্তিযুদ্ধের চার মূলনীতির অন্যতম ধর্মনিরপেক্ষতাকে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত না করে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বহাল রাখা হয়েছে। শুধু তাই নয়, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিরুদ্ধে গিয়ে ধর্মভিত্তিক রাজনীতিও নিষিদ্ধ করা হয়নি। এর ফলে, মুক্তিযুদ্ধের সরাসরি বিরোধীতাকারী যুদ্ধাপরাধী দল জামায়াত-শিবির সহ বিভিন্ন সাম্প্রদায়িক দল অপরাজনীতির মাধ্যমে দেশে সাম্প্রদায়িকতরা বিষবাষ্প ছড়িয়ে চলেছে।

বক্তারা আরো বলেন, বাহাত্তরের সংবিধানকে অস্বীকার করা মানেই বাংলাদেশকে অস্বীকার করা। মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্যে দিয়ে অর্জিত সংবিধানকে বারবার কাঁটাছেড়া করার মধ্য দিয়ে বিশ্বের অন্যতম সুসংগঠিত সংবিধান ক্রমান্বয়ে গুরুত্বহীন হয়ে পড়েছে।

Advertisement

বক্তারা আরও বলেন, অনেকেই বিতর্ক উত্থাপন করে থাকেন হাইকোর্ট কোনো আইন সংশোধন করতে পারে না। হাইকোর্ট কোনো আইন সংশোধন করেনি। জিয়াউর রহমান ও এরশাদ কর্তৃক অবৈধভাবে যে সংশোধন করা হয়েছিল সেগুলো বাতিল করেছে মাত্র।

এসব বন্ধের দায়িত্ব সরকারের মন্তব্য করে সমাবেশে বক্তারা অবিলম্বে বাহাত্তরের সংবিধানকে অবিকৃতভাবে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করার দাবি জানান।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাহাত্তরের সংবিধান পুনঃপ্রতিষ্ঠা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক বদিউর রহমান।

সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, জাসদ সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়া, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জিলানী শুভসহ অন্যান্যরা। সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়।