চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘শুধু নগর চিন্তা নয়, গ্রামের স্কুলেও বিজ্ঞানাগার থাকা প্রয়োজন’

বিজ্ঞানের চর্চা সর্বস্তরে ছড়িয়ে দেবার আহ্বান জানিয়েছেন দেশের বিশিষ্টজনেরা। রাজধানীর স্কলাস্টিকা স্কুলে আন্তঃস্কুল বিজ্ঞান মেলার সমাপনীতে তারা বলেন, শুধু নগর নিয়ে চিন্তা করে সামগ্রিক উন্নয়ন সম্ভব নয় তাই দেশের গ্রামের স্কুলগুলোতেও বিজ্ঞানাগার থাকা প্রয়োজন। 

রাজধানীর এবং  এর বাইরের ৩৮টি স্কুলের ক্ষুদে বিজ্ঞানিদের  নিয়ে উত্তরার স্কলাস্টিকা স্কুলে বিএফএফ স্কলাস্টিকা সমকাল আন্তঃস্কুল বিজ্ঞান মেলা। মেলায় ক্ষুদে বিজ্ঞানিরা তুলে ধরেন তাদের  উদ্ভাবিত ১’শ ৮০টি প্রজেক্ট। 

সেখানে বন্যায় ডুবে যাওয়া এলাকায় ভেসে থাকা ঘর যেমন আনা হয়েছে তেমনই পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বিল্ডিংয়ের উপরে গাছপালা লাগানো দেখানো হয়েছে প্রদর্শনীতে। 

দু’দিন ব্যাপি মেলার শেষ দিনে সমাপনীর আগে প্রজেক্টগুলো ঘুরে দেখেন কৃষি ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ এবং সমকালের সম্পাদক, গোলাম সারওয়ার। কথা বলেন ক্ষুদে বিজ্ঞানিদের সঙ্গে।

সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে চ্যানেল আইয়ের পরিচালক এবং বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ বলেন, যে জাতির বিজ্ঞান চর্চা যত বেশি সে জাতি ততো উন্নত। আর বর্তমানে বাংলাদেশ যে খাদ্যে স্বয়ং-সম্পূর্ণ তার পেছনেও রয়েছে আধুনিক বিজ্ঞানের অনেক অবদান।

Advertisement

তিনি বলেন, গ্রামের স্কুলগুলোতে যদি আমরা যাই তাহলে দেখবো সেখানে কোনো বিজ্ঞানাগার নেই। যেটা কিনা খুবই প্রয়োজন। একটি শিশুর মধ্যে বিজ্ঞানের চর্চা আসবে কোথায় থেকে? একটা স্কুলের মধ্যেই যদি মোটামুটি অবস্থান না থাকে তাহলে সে চর্চাটা করবে কোথা থেকে? বাংলাদেশে যেসব স্কুল ও কলেজকে আরো সুসংহত করা দরকার। শুধু নগরকে চিন্তা করে সামগ্রিক উন্নয়ন সম্ভব না। আমাদের এই উন্নয়নের মেধা দেশের সবস্তরে, সব ধরনের কাঠামোতে ছড়িয়ে দেওয়াটা খুবই জরুরি।  

বর্তমানে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিজ্ঞান শিক্ষায় অনাগ্রহ তৈরি হয়েছে উল্লেখ করে অন্যান্য অতিথিরা শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞানমনস্ক হবার আহ্বান জানান।

দৈনিক সমকালের সম্পাদক গোলাম সারওয়ার বলেন, একটি জাতি যদি বিজ্ঞানমনস্ক না হয় তাহলে তার সামনে এগিয়ে যাওয়ার পথ অবারিত হয় না। যা কিছু উন্নয়ন, যা কিছু অগ্রগতি সবকিছুর পেছনে রয়েছে বিজ্ঞান।  

স্কলাস্টিকা স্কুলের প্রিন্সিপাল ব্রি. জে. (অবঃ) কায়সার আহমেদ বলেন, মানুষ বিজ্ঞানমনস্ক না হলে সমাজে অন্যান্য অস্থিরতাগুলো বেড়ে যাবে।

এবারের বিজ্ঞান মেলায় প্রথম হয়েছে স্কলাস্টিকা স্কুল। পরে বিজয়ীদের হাতে অতিথিরা পুরষ্কার তুলে দেন।