চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

শহীদ স্মরণের মিলনমেলায় পাইলটদের হারালেন মিনহাজুলরা

শহীদ জুয়েল ও শহীদ মোশতাক একাদশের লড়াই

প্রতিবারের মতো বিজয় দিবসে ক্রীড়াঙ্গনের দুই শহীদ স্মরণে প্রদর্শনী ক্রিকেট ম্যাচের আয়োজন করেছিল বিসিবি। শহীদ জুয়েল ও শহীদ মোশতাক একাদশে ভাগ হয়ে খেলেছেন বাংলাদেশ দলের সাবেক ক্রিকেটাররা। মাঠের লড়াইয়ে খালেদ মাসুদ পাইলটের শহীদ জুয়েল একাদশকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে মিনহাজুল আবেদীন নান্নুর শহীদ মোশতাক একাদশ।

রোববার বিজয় দিবসের সকালে মিরপুর শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে গড়ায় টি-টুয়েন্টি ফরম্যাটের ম্যাচটি। টস জিতে শহীদ জুয়েল একাদশকে ব্যাটিংয়ে পাঠান শহীদ মোশতাক একাদশের অধিনায়ক মিনহাজুল।

হোম অব ক্রিকেটে পরে নির্ধারিত ওভারে ৬ উইকেটে ১৬০ রানের পুঁজি পায় জুয়েল একাদশ। লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে এক বল ও ৪ উইকেট হাতে রেখেই জয় ছুঁয়ে ফেলে মোশতাক একাদশ।

ব্যাটিংয়ে দারুণ শুরু করে জুয়েল একাদশ। ৬৮ রানের উদ্বোধনী জুটি আনেন হান্নান সরকার ও এহসানুল হক সেজান। সেজান ৩৩ বলে ৩৭, হান্নান ৩১ বলে ৩২ রানে ফেরেন।

ওপেনাররা সাজঘরে ফেরার পর অধিনায়ক খালেদ মাসুদও দ্রুত রান তোলেন। ২৫ বলে ৫ চার ও এক ছক্কার সর্বোচ্চ ৩৮ রানের ইনিংস টাইগারদের সাবেক অধিনায়কের।

Advertisement

রানতাড়ায় ব্যাটে দারুণ শুরু করে মোশতাক একাদশও। ফয়সাল হোসেন ডিকেন্স মাঝে ৩৪ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কায় ৫১ রানের ইনিংস খেললে লক্ষ্য অনেক সহজ হয়ে যায়।

মোহাম্মদ রফিক ২১ বলে ২৭ ও অধিনায়ক মিনহাজুল ৩ ছয়ে ১২ বলে ২৩ রানের ইনিংস খেলে জয়ের পথে শেষটা রাঙান। হারুনুর রশিদ উদ্বোধনীতে করেন ২৭ বলে ২৯ রান।

শহীদ জুয়েল এবং শহীদ মোশতাক, দুই ক্রীড়াপাগল মানুষ। প্রথমজন ক্রিকেটার, দ্বিতীয়জন সংগঠক। ২৫ মার্চ কালরাতে হানাদাররা নৃশংসভাবে হত্যা করে নির্মল মনের ক্রীড়াপাগল মোশতাক আহমেদকে।

আর আবদুল হালিম চৌধুরী (জুয়েল) মুক্তিবাহিনীর দুর্ধর্ষ ক্র্যাক প্লাটুনের সদস্য। এই গেরিলা বাহিনীতে ছিলেন রুমি, বদিউজ্জামান, আলম, পুলু, সামাদ, আজাদের মতো দেশের জন্য আত্মত্যাগী তরুণরা। মগবাজারে সুরকার আলতাফ মাহমুদের বাসা থেকে ২৯ আগস্ট হানাদাররা আহত অবস্থায় জুয়েলকে ক্যাম্পে ধরে নিয়ে যায়।

এক সময় হত্যা করা হয় স্বাধীন বাংলাদেশের বড় ক্রিকেট তারকা হওয়ার রসদ জমে থাকা জুয়েলকে। একইরাতে পাকিস্তানীদের হাতে ধরা পড়া আজাদ, রুমি, বদি, আলতাফ মাহমুদসহ অনেকে আর ফেরেননি।

প্রতি বিজয় দিবসে এই দুই নায়ককে স্মরণের শ্রদ্ধামঞ্চ হয়ে ওঠে মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটের সবুজ গালিচা। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) আয়োজন করে এই শহীদ জুয়েল-শহীদ মোশতাক প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচের। শের-ই-বাংলার প্রতিটি ইঞ্চি হয়ে ওঠে সাবেক ক্রিকেটারদের মিলনমেলার মঞ্চ।