চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে ‘অতিরিক্ত আলসেমি’ করছে মিয়ানমার: জাতিসংঘ

জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস মিয়ানমারের সমালোচনা করে বলেছেন, দেশটি রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে ‘অতিরিক্ত আলসেমি’ করছে।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ইস্যুতে অগ্রগতির অভাব এ বিষয়টি নিয়ে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি করছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

২০১৭ সালের আগস্টে নতুন করে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে শুরু হওয়া রোহিঙ্গা নির্যাতনের পর থেকে লাখ লাখ রোহিঙ্গা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশের মিয়ানমার সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে বিভিন্ন ক্যাম্পে প্রায় সাড়ে সাত লাখ পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা বসবাস করছে।

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর রোহিঙ্গা নিপীড়নের এ ঘটনাকে ‘পাঠ্যপুস্তকে উল্লেখ করার মতো জাতিগত নিধন’ বলে আখ্যা দিয়েছে।

Advertisement

২০১৭ সালে আশ্রয় নেয়ার পর কিছু সংখ্যক রোহিঙ্গা ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে গত বছর মিয়ানমার বাংলাদেশের সঙ্গে একটি সমঝোতায় পৌঁছেছিল। কিন্তু ওই সময় জাতিসংঘ বলেছিল, ফিরিয়ে নেয়ার আগে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ ইস্যুতে গুতেরেস বলেন, ‘এই ভুক্তভোগী মানুষগুলোর ব্যাপারে মিয়ানমারের কাজে অগ্রগতির এত অভাব দেখে আমি তীব্র ক্ষোভ অনুভব করছি।’

‘আমরা জোর আহ্বান জানাচ্ছি যেন তাদের স্বেচ্ছায় ফিরে যাওয়ার মতো উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি করা হয়। পরিস্থিতি খুব বেশিই ধীর হয়ে গেছে।’

চলতি মাসেই জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংগঠন ইউএনএইচসিআর’র প্রধান ফিলিপো গ্রান্দির রাখাইনে আনুষ্ঠানিক সফরে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মিয়ানমার সরকার হঠাৎ করেই সেই সফর পিছিয়ে দেয়।

জাতিসংঘের দূত ক্রিস্টিন শ্র্যানার বার্গেনারের জানুয়ারির শেষদিকে মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনায় বসার কথা রয়েছে। বৈঠক শেষে এ বিষয়ে তিনি জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে রোহিঙ্গা সংকটে কী কী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন, এ বিষয়ে প্রতিবেদন জমা দেবেন।