চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

যেসব ছবির জন্য বেঁচে থাকবেন ঋষি কাপুর

চকলেটের লোভে তিন বছর বয়সে ক্যামেরার সামনে এসেছিলেন ঋষি কাপুর। রাজ কাপুরের ‘শ্রী ৪২০’ সিনেমায় ‘পেয়ার হুয়া ইকরার হুয়া’ গানের একটি দৃশ্যে শিশু অভিনেতা হিসেবে কাজ করেছিলেন তিনি।

পরিণত হয়ে ঋষি কাপুর বলিউডে পা রেখেছিলেন ‘মেরা নাম জোকার’ ছবি দিয়ে। এই ছবির জন্য জাতীয় পুরষ্কার অর্জন করেছিলেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

নায়ক হিসেবে ঋষি কাপুর জনপ্রিয়তা পান ‘ববি’ সিনেমায়। এই সিনেমার জন্য সেরা অভিনেতার ফিল্মফেয়ার পুরস্কার পেয়েছিলেন তিনি।

অমিতাভ বচ্চন ও বিনোদ খান্নার মারদাঙ্গা অভিনয়ের যুগে ঋষি কাপুরকে দেখা যেত শান্ত এবং রোমান্টিক প্রেমিক হিসেবে। একারণেই বলিউডের ‘চকলেট বয়’ বলা হতো সুদর্শন ঋষি কাপুরকে।

একক নায়ক হিসেবে মোট ৫১টি সিনেমায় অভিনয় করেছিলেন ঋষি কাপুর। তার মাঝে ব্যবসাসফল হয় ১১টি। তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্যবসা করেছিল ‘ববি’। এই তালিকায় আরও ছিল লায়লা মজনু, রফু চক্কর, সারগম, কর্জ, প্রেম রোগ, নাগিনা, হানিমুন, চাঁদনি, হিনা এবং বোল রাধা বোল।

ঋষি কাপুরের ৪১টি মাল্টি-হিরো ছবির মধ্যে ২৫ টি ভালো ব্যবসা করেছে। সেগুলোর মধ্যে অন্যতম অমর আকবর অ্যান্থনি, খেল খেল মে, কাভি কাভি, হাম কিসিসে কম নেহি, বদলতে রিস্তে, আপ কে দিওয়ানে ও সাগর।

বিংশ শতকে ‘অগ্নিপথ’ ছবির রিমেকে তার খলচরিত্র ‘রউফ লালা’ স্মরণীয় হয়ে থাকবে। এছাড়াও ‘ইয়ে হ্যায় জালওয়া’, ‘তেহজিব’, ‘হামতুম’, ‘ফানা’, ‘নামাস্তে লন্ডন’, ‘লাভ আজকাল’, ‘পাতিয়ালা হাউজ’, কাপুর অ্যান্ড সন্স’, ‘মুল্ক’ ও ‘শুদ্ধ দেশি রোমান্স’ ছবিতে তার অভিনয় প্রশংসিত হয়। ঋষি কাপুরকে শেষ দেখা গিয়েছে ইমরান হাসমির বডি ছবিতে। গত বছরের ডিসেম্বরে মুক্তি পেয়েছে ছবিটি।

বুধবার গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় মুম্বাইয়ের এইচএন রিলায়েন্স হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি হয়েছিলেন ঋষি কাপুর। বৃহস্পতিবার সকালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে চলে গেলেন তিনি। তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর।

২০১৮ সালে ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছিলেন ঋষি কাপুর। ওই বছরই সেপ্টেম্বরে নিউইয়র্ক যান চিকিৎসার জন্য। গত বছরের সেপ্টেম্বরে দেশে ফেরেন তিনি।