চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মেডিকেল শিক্ষার্থীদের সিনোফার্মের ভ্যাকসিন প্রদান শুরু

সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজ শিক্ষার্থীদের চীনের সিনোফার্মের করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া শুরু হয়েছে শনিবার।

ঢাকার চারটি মেডিকেল কলেজসহ সারা দেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ ও জেলা হাসপাতালে চীনের সিনোফার্মের করোনার টিকাদান কেন্দ্রে চলছে ভ্যাকসিন প্রদান।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

চীনের কাছ থেকে উপহার হিসেবে পাওয়া ১১ লাখ ভ্যাকসিন সরকারি বেসরকারি মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের, বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শিক্ষার্থীসহ বিদেশগামী যাত্রীদের, সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের দেয়া হবে।

মোট পাঁচ লাখ মানুষ পাবে এই ভ্যাকসিন। সিনোফার্মের এই ভ্যাকসিন ১৮ বছরের নিচে কাওকে দেওয়া হবে না। ভ্যাকসিন গ্রহণের সময় জ্বর থাকলে বা অসুস্থ থাকলে, ভ্যাকসিনজনিত অ্যালার্জির পূর্ব ইতিহাস থাকলে, প্রথম ডোজ গ্রহণের পর মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হলে তিনি এ ভ্যাকসিন নিতে পারবেন না।

বিজ্ঞাপন

অনিয়ন্ত্রিত দীর্ঘমেয়াদি রোগ, যেমন: ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, স্ট্রোক, ঘা, অ্যাজমা, কিডনি রোগ, ডায়ালাইসিস নিচ্ছেন এমন ব্যক্তি, ক্যানসারে আক্রান্ত এবং স্বল্প রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জনগোষ্ঠীর ভ্যাকসিন দেওয়ার ক্ষেত্রে রেজিস্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ভ্যাকসিনের জন্য ইতিমধ্যে রেজিস্ট্রেশন করেছেন ৭০ লাখ মানুষ। তাদের মধ্যে ৫৮ লাখ মানুষের কেউ দুই ডোজ ভ্যাকসিন নিয়েছেন, আবার কেউ একটা ডোজ নিতে পেরেছেন। যারা এক ডোজ ভ্যাকসিনও পায়নি তাদের লক্ষ্য করে এই সিনোফার্ম ভ্যাকসিনের কার্যক্রম চলবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, ঢাকা জেলায় চারটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মাধ্যমে দেয়া হবে সিনোফার্মের ভ্যাকসিন। এই চারটি হাসপাতাল হচ্ছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

এসব হাসপাতালে একটি করে ভ্যাকসিন কেন্দ্র হবে এবং প্রতিটি কেন্দ্রে দুটি করে বুথ থাকবে। তাছাড়া ঢাকা জেলা বাদে প্রতি জেলায় একটি করে ভ্যাকসিনেশন কেন্দ্র হবে এবং প্রতিটি কেন্দ্রে দুটি করে বুথ থাকবে। তবে বুথ চালু করতে হবে ভ্যাকসিন গ্রহীতার সংখ্যার ওপর নির্ভর করে।

বিজ্ঞাপন