চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মেজর সিনহা হত্যা মামলার চতুর্থ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ

সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলায় দ্বিতীয় দফায় সাক্ষ্যগ্রহণের দ্বিতীয় দিনে আজ সোমবার চতুর্থ স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্যগ্রহণ ও জেরা শেষ হয়েছে।

আজ সাক্ষ্য দিয়েছেন ঘটনার আরেক প্রত্যক্ষদর্শী, সিএনজি চালক কামাল হোসেন। তিনি আদালতে সেদিনের ঘটনা বর্ণনা দেন কিভাবে ঘটেছিল তার চোখের সামনে। পরে তাকে জেরা করেন আসামী পক্ষের আইনজীবীরা। পুলিশের গুলিতে সিনহা নিহতের সময় তিনি ঘটনাস্থলের নিকটেই ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ ইসমাইলের আদালতে আজ সকাল সোয়া ১০ টায় এ স্বাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয় শেষ হয় সন্ধ্যার একটু আগে ৫ টা ৪৫ মিনিটের সময় এর সময়।

এর আগে সকাল পৌনে ১০ টার দিকে কঠোর নিরাপত্তা বলয়ের মধ্য দিয়ে পুলিশের প্রিজনভ্যানে করে মামলার ১৫ আসামীকে আদালতে হাজির করা হয়।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আশপাশে নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

বিজ্ঞাপন

রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি ফরিদুল আলম জানিয়েছেন, গতকাল ৬ জন সাক্ষীকে নোটিশ দেওয়া হয়েছিল। তাদের মধ্যে যারা আজ হাজির হয়েছে তাদের পর্যায়ক্রমে আদালতে উপস্থাপন করা হয়। ইতোমধ্যে চতুর্থ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে। আগামীকাল পঞ্চম সাক্ষীকে আদালতে উপস্থাপন করা হবে।

আসামি পক্ষের আইনজীবী রানা দাশ গুপ্ত বলেছেন, আজ যে সাক্ষী দিয়েছেন, তিনি যে সিএনজি চালক তার কোন প্রমাণ নেই। আদালতকে তিনি যা বলছেন তা ইতোপূর্বে তদন্ত কর্মকর্তাকে বলেননি।

বাদীপক্ষের আইনজীবী এডভোকেট জাহাঙ্গীর আলম বলেন, মামলার চতুর্থ সাক্ষী সিএনজি চালক মোঃ কামাল হোসেন সেদিন তার চোখের সামনে ঘটে যাওয়া ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন আদালতে।

এই আইনজীবী জানান, কামাল হোসেন বলেছেন, তার চালিত সিএনজিকে একপ্রকার ধাক্কা দিয়ে মেজর সিনহার গাড়ি আগে বাড়াচ্ছিলেন। এমন জোরে গাড়ি ধাক্কা দিয়ে চলে যাচ্ছিলো যে তা দেখার জন্য তার পেছনে সিএনজিচালক পুলিশ চেকপোস্টে এর কাছে দাঁড়াতেই গুলির শব্দ শুনতে পান বলে আদালতকে জানান।

এর আগে গত ২৩ আগস্ট থেকে ২৫ আগস্ট পর্যন্ত টানা তিনদিনে মামলার বাদী, মেজর সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস ও ঘটনার সময় সিনহার সাথে থাকা সাবেক সহকর্মী সাহেদুল ইসলাম সিফাতের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়। গতকাল রোববার আদালতে স্বাক্ষ্য দিয়েছেন এই হত্যা মামলার ৩ নম্বর সাক্ষী মোহাম্মদ আলী।

গত বছরের ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

বিজ্ঞাপন