চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘মুভমেন্ট পাস’ সবার জন্য না: পুলিশ সদর

কারোনাভাইরাসে সাধারণ ছুটির মধ্যে ‘মুভমেন্ট পাস’ নামে যে কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ, তার সুবিধা সবাই পাবে না। শুধু  জরুরি সেবা ও পণ্য সরবরাহের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরাই পাবেন সেই বিশেষ পাস।   

পুলিশ সদর দপ্তর বলছে, মুভমেন্ট পাসের জন্য এরইমধ্যে একটি অ্যাপ ডেভেলপ করা হয়েছে। যেটা এখন পরীক্ষাধীন। এজন্য একটি ওয়েবসাইটও (https://movementpass.police.gov.bd) খোলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সেখান থেকে নিবন্ধন ও ভেরিফিকেশনের পর প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে পাসের জন্য আবেদন জমা দিতে হবে। তথ্য যাচাই-বাছাই শেষে পাস দেবে পুলিশ।

বিজ্ঞাপন

এ নিয়ে জানতে চাইলে পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (গণমাধ্যম) মো. সোহেল রানা চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, ‘জরুরি পণ্য-সেবা প্রদানের কাজে পরিবহনের চলাচল সুনিশ্চিত করতে এবং সুশৃঙ্খল অবস্থায় আনতে বিশেষ পাস দেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে।’

‘‘এই পাসের জন্য অনলাইনে রেজিস্ট্রেশনের জন্য আবেদন করতে হবে। দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তারা আবেদন যাচাই-বাছাই করে উপযুক্ত মনে হলে পাস দেবেন।’’

বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, ‘অ্যাপটি পুলিশের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো হয়েছে। তারা সেটি ব্যবহার করে সুবিধা-অসুবিধা সম্পর্কে জানাবেন। এরপর সার্বিক বিষয় যাচাই করে এটার পারফেকশন দেয়ার চেষ্টা করবো।’

পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা মুভমেন্ট পাসের বিষয়ে বলেন, ‘পরিবহনের চলাচলে শৃঙ্খলা আনতে পদ্ধতিটি চালু হচ্ছে। এখন যেভাবে যে কোনো গাড়ি জরুরি সেবার নাম দিয়ে ঢাকা থেকে বের হচ্ছে বা ঢুকছে এবং এক জেলা থেকে অন্য জেলা যাতায়াত করছে। এতে একটি বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।’

মুভমেন্ট পাসের জন্য যেসব তথ্য লাগবে
কোন থানা এলাকা থেকে কোন থানা এলাকায় যাবেন, যে থানা এলাকায় যাবেন তা উল্লেখ করতে হবে, আবেদনকারীর নাম, লিঙ্গ, বয়স, ভ্রমণের কারণ, পাস ব্যবহারের তারিখ ও সময়, পাশের মেয়াদ শেষের তারিখ ও সময়, পরিচয়পত্র, ছবি। পরিচয়পত্র হিসেবে জাতীয় পরিচয়পত্র, ড্রাইভিং লাইসেন্স, পাসপোর্ট, জন্মনিবন্ধন বা স্টুডেন্ট আইডি কার্ড ব্যবহার করা যাবে।

মুদি মালামাল কেনাকাটা, কাঁচাবাজার, ওষুধ কেনা, চিকিৎসা, চাকরি, কৃষিকাজ, পণ্য পরিবহন, পণ্য সরবরাহ, ত্রাণ বিতরণ, পাইকারি/খুচরা ক্রয়, পর্যটন, মৃতদেহ সৎকার, ব্যবসাসহ অন্যান্য কারণে বাইরে যাওয়ার আবেদন করা যাবে।

সরকারের সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ জানিয়েছে, পণ্যবাহী যানবাহনে যাত্রী বহন করলে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছে।