চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মসজিদে বিস্ফোরণ: আরও একজনের মৃত্যুতে মোট মৃত ২৯ জন

জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটির সময়সীমা সাতদিন বৃদ্ধি

নারায়ণগঞ্জে মসজিদে আগুনের ঘটনায় আহত আব্দুস সাত্তার নামে আরও একজন মৃত্যুবরণ করেছেন। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। ওই দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত ২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় জেলা প্রশাসন গঠিত তদন্ত কমিটি আরো সাতদিনের জন্য সময় চেয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মোঃ জসিমউদ্দিন। বৃহস্পতিবার দুপুরে তদন্ত কমিটির প্রধান ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট খাদিজা তাহেরা ববি জেলা প্রশাসকের সাথে দেখা করে তদন্তের সময় বাড়ানোর জন্য আবেদন করেন। এ কমিটির দায়িত্ব ছিল ৫ কর্ম দিবসের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট জমা দেয়ার।

বিজ্ঞাপন

তিতাস গ্যাস খোঁড়াখুঁড়ি কাজের জন্য শুক্রবার থেকে গ্যাস লাইন বন্ধ রাখায় জনসাধারণ চরম ভোগান্তির মধ্যে আছে। তদন্তের বাইরেও জনসাধারণ যেসব সমস্যাগুলো বলছে সে ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছেন জানিয়ে জেলা প্রশাসক বলেন, তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর যেগুলো তার অধীনস্থ সে ব্যাপারে ব্যবস্থা নিবেন। অন্য সংস্থাগুলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে চিঠি দিবেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, এরই মধ্যে মসজিদের দুর্ঘটনায় নিহতদের তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কার্যলয়ে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় হতাহতদের মধ্যে বেশিরভাগই একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি।

বিজ্ঞাপন

গত ৪ সেপ্টেম্বর রাতে নারায়ণগঞ্জ শহরের তল্লা এলাকার বায়তুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। তাতে অর্ধশত মানুষ দগ্ধ হয়। যাদের মধ্যে গুরুতর ৩৭ জনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিটিউটে ভর্তি করা হয়েছিল।

এশার নামাজের সময় ঘটা ওই বিস্ফোরণে দগ্ধদের উদ্ধার করে প্রথমে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে পরিস্থিতি খারাপ হওয়ায় তাদেরকে বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিটিউটে ভর্তি করা হয়।

বিস্ফোরণে মসজিদের ভেতর আগুন জ্বলে উঠে এবং কাঁচ ভেঙে মুসল্লিরা আহত হয়। মসজিদের ভেতরের ৬টি এসি দুমড়ে মুচড়ে গেছে। ২৫টি সিলিং ফ্যানের পাখা বাঁকা হয়ে গেছে।

প্রাথমিকভাবে মসজিদের এসি থেকে বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে ধারণা করা হলেও পরে ফায়ার সার্ভিস জানায়, ওই মসজিদের নিচ দিয়ে যাওয়া গ্যাস পাইপ লিকেজের কারণে বিস্ফোরণ ঘটে।