চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ভারতের মহারাষ্ট্রে করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের প্রস্তুতি, আক্রান্ত অনেক শিশু

মে মাসে ভারতের মহারাষ্ট্রের আহমেদানগরে ৮০০০ শিশু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এরপরেই রাজ্যটি করোনার তৃতীয় ঢেউ সামলাতে পদক্ষেপ নেওয়া শুরু করেছে। নতুন ঢেউতে শিশুরা বেশি আক্রান্ত হবে বলেই আশঙ্কা তাদের।

মহারাষ্ট্রের সানগালি শহরে করোনা আক্রান্ত শিশুদের জন্য আলাদা করে একটি ওয়ার্ড প্রস্তুত করা হচ্ছে। বর্তমানে সেখানে ৫ শিশু চিকিৎসা নিচ্ছে আর অনেক শিশুর সেবার জন্য তা প্রস্তুত করা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

করপোরেটর অভিজিৎ ভোসালে বলেন, আমরা শিশুদের জন্য একটি ওয়ার্ড প্রস্তুত করেছি যেন যদি দরকার পড়ে তাহলে তৃতীয় ঢেউ আসলে আমরা প্রস্তুত থাকতে পারি।  শিশুরা যেন মনে না করে যে তারা হাসপাতালে আছে, বরং তাদের মনে হবে তারা স্কুল বা নার্সারিতে আছে।

এই মাসেই আমেদানগরে ৮০০০ শিশু ও কিশোরবয়সী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত শনাক্ত হওয়ার পরই কর্তৃপক্ষ সচেতন হয়ে ‍উঠে।  সেখানে আক্রান্তের হার ১০ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন

জেলা প্রশাসন সেখানকার শিশুরোগ বিশেষজ্ঞদের কাছে যাচ্ছেন, যেন তারা তৃতীয় ঢেউয়ের জন্যও প্রস্তুত হয়।  জেলাপ্রধান রাজেন্দ্র ভোসালে বলেন, শুধু মে মাসেই ৮০০০ শিশু আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি দুশ্চিন্তার।

এমএলএ সংগ্রাম জগতাপ বলেন, দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময়ে আমরা বেড ও অক্সিজেন সঙ্কটে ভুগেছি।  তুতীয় ঢেউয়ের সময়ে সেটা এড়াতে হবে। সেজন্য নিজেদের পুরোপুরি প্রস্তুত করতে হবে। রাজ্য সরকার এবার কোনো ধরনের ঝুঁকি নিতে চায় না।  তাদের ধারণা জুলাই বা আগস্টের শুরুতে তৃতীয় ঢেউ আঘাত হানতে পারে।  তার মানে কর্তৃপক্ষ প্রস্তুতির জন্য দুই মাস সময় পাচ্ছে।

ফেব্রুয়ারিতে হানা দেওয়া করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে ভারতের যেসব রাজ্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলো, তাদের মধ্যে প্রথমটি ছিলো মহারাষ্ট্র।  হাসপাতালে ছিলো প্রবল ভিড়। রোগী ও তাদের পরিবারকে চিকিৎসা, অক্সিজেন ও ওষুধের জন্য সংগ্রাম করতে হয়েছে।

তবে করোনার তৃতীয় ঢেউ ‘অনিবার্য’ বলেই মন্তব্য করেছেন কেন্দ্রিয় সরকারের শীর্ষ বিজ্ঞান উপদেষ্টা ড. কে বিজয়রাঘবন।