চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ব্যাংক ডাকাতির ঘটনায় জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা পেয়েছে পুলিশ

সাভারের আশুলিয়ায় ব্যাংক ডাকাতির সঙ্গে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসারউল্লাহ বাংলা টিম অথবা জেএমবি জড়িত বলে প্রাথমিক তদন্তে নিশ্চিত হয়েছে পুলিশ। গ্রেফতার হওয়া দুই ডাকাতের মধ্যে বোরহান শিবিরের সঙ্গে জড়িত। পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, বড় ধরনের ফান্ড তৈরি এবং নিজেদের অবস্থান জানান দিতে ব্যাংক ডাকাতির পাশাপাশি হত্যাকাণ্ড চালায় তারা।

গত মঙ্গলবার সাভারের কাছে আশুলিয়ার কাঠগড়া বাজারে বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের শাখায় ১০/১২ জনের একটি ডাকাত দল হানা দেয়। ডাকাতদের গুলিতে ব্যাংকের ভেতরেই ম্যানেজার ওয়ালিউল্লাহ, নিরাপত্তাকর্মী ইব্রাহিম এবং গ্রাহক শাহাবুদ্দিন পলাশ নিহত হন।

পরে ডাকাতদের ধাওয়া করতে গিয়ে গুলিতে নিহত হন মনির, নুরুজ্জামান এবং আরেকজন এলাকাবাসী।  গণপিটুনিতে এক ডাকাতের মৃত্যু হয়।

ওই ঘটনায় জনতার হতে ধরা পড়া ডাকাত বোরহান এবং সাইফুলকে আটক করে কয়েক দফা জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ। ডাকাতরা জানিয়েছে, তারা দু’জনই মাদ্রাসায় লেখাপড়া করেছে।

Advertisement

এমনকি তাদের একজন হেফাজতের আন্দোলনের দিন গ্রেফতারের রেকর্ডও পুলিশের হাতে রয়েছে। তাদের স্বীকার উক্তি অনুযায়ী উদ্ধার হওয়া বইগুলো জেএমবি ও আনসারুল্লাহ সংগঠনের আদর্শিক বই গুলোর সাথে মিল রযেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ঘটনাস্থল থেকে অবিস্ফোরিত ২টি গ্রেনেড, ২টি তাজা বোমা এবং চাপাতি ও ছোরা উদ্ধার করে পুলিশ। গোয়েন্দারা বোমা, গ্রেনেড ও ডাকাতির ধরন দেখে নিশ্চিত হয়েছে পুরো ঘটনার সঙ্গে প্রশিক্ষিত জঙ্গি গোষ্ঠি জড়িত।

ঢাকা জোনের এসপি হাবিবুর রহমান বলেন, ডাকাতির যে ধরন তাতে করে পুলিশ এক প্রকার নিশ্চিত এর সাথে জঙ্গি গোষ্ঠি জড়িত। এমনকি আটক হওয়া ডাকাতরা জিজ্ঞাসাবাদে যে ধরনের উত্তর দিচ্ছে তাও জঙ্গিদের মনোভাবের সাথে সদৃশ।

গণপিটুনিতে নিহত ডাকাতের পরিচয় এখনো জানা যায়নি। পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, গ্রেফতার দুই ডাকাত সুস্থ হয়ে উঠলে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে সব রহস্য উন্মোচন করা যাবে।