চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন আসিফ-হিয়ারা

কাকডাকা ভোর থেকে সন্ধ্যা। মিরপুর ইনডোর স্টেডিয়ামে পা রাখলেই চোখে পড়ে রোল বল হাতে অনুশীলনরত এক ঝাঁক তরুণ-তরুণীকে। কাল থেকে এই খেলার বিশ্বকাপ। সেটিও আবার বাংলাদেশে। তাই আসিফ-হিয়াদের রোমাঞ্চের যেন শেষ নেই। বুধবার কোর্টে দাঁড়িয়ে এক নিঃশ্বাসে রোল বলে বাংলাদেশ পুরুষ দলের অধিনায়ক আসিফ ইকবাল বলে দিলেন, ‘ফাইনালে তো যাবোই। শিরোপাটাও চাই।’

বাংলাদেশে এর আগে ক্রিকেটের বিশ্বকাপ আসর বসেছে। সে সময় পথে-ঘাটে মানুষের উত্তেজনা ছিল চোখে পড়ার মতো। আলোর রোশনাইতে ঢাকা সেজেছিল নববধূর সাজে। এদেশে প্রায় অচেনা রোল বল নিয়ে অতটা আগ্রহ না থাকারই কথা। নেইও। তবু নিভৃতে দেশবাসীকে বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা শিরোপার স্বপ্ন দেখাচ্ছেন। শুক্রবার থেকে পল্টনের শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্সে বসছে ৪০টি দেশের অংশগ্রহণে রোল বলের এই বিশ্বযজ্ঞ।

জাতীয় ফুটবল দলের খেলোয়াড়দের যেখানে সুযোগ-সুবিধা নিয়ে আক্ষেপ করতে শোনা যায়, সেখানে এই রোল বল খেলোয়াড়দের কণ্ঠে সুযোগ-সুবিধা নিয়ে প্রশংসার কথাই শোনা গেল।

‘আমরা প্রায় দুই মাস প্রস্তুতি নিয়েছি। আবাসন, খাওয়া-দাওয়া, ফিটনেস, কোচ ইত্যাদি থেকে শুরু করে একজন জাতীয় দলের খেলোয়াড়ের জন্য যে সব সুযোগ-সুবিধা দরকার, প্রায় সব কিছুর ব্যবস্থা করেছে ফেডারেশন। প্রধান কোচ আশরাফুল আলম মাসুম স্যারের তত্ত্বাবধানে দুজন ভারতীয় কোচ আমাদের কোচিং করিয়েছেন। আমরা এবার ফাইনালে যাবোই।’ বলছিলেন আত্মবিশ্বাসী আসিফ ইকবাল।

পুরুষদের পাশাপাশি নারী দলের খেলোয়াড়রাও পিছিয়ে নেই। একে তো রোল বল, তার ওপর বিশ্বকাপ। কোনো ধরনের ভয় কাজ করছে কী না, এমন প্রশ্নের জবাবে অধিনায়ক জান্নাত জেবিন হিয়া বললেন, ‘এটাই তো আমাদের সুবিধা। আমরা ওদের ফাঁক-ফোকর দিয়ে গোল করে ফেলবো।’

উত্তরটা দুষ্টুমি করে দিলেও প্রস্তুতি নিয়ে বেশ সাবধানী হিয়া, ‘বেশ ভালো প্রস্তুতি নিয়েছি। ভারতের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচও খেলেছি। এবার আসল লড়াইয়ে সেরাটা দিতে প্রস্তুত দল।’

বিজ্ঞাপন

বিশ্বকাপ উপলক্ষে ভারত থেকে আসা কোচদের একজন সুনীল ধাগে। তিনিও বললেন বাংলাদেশের সম্ভাবনার কথা, ‘ভারত দুবারের চ্যাম্পিয়ন। কঠিন প্রতিপক্ষ বললে তাদের নাম সবার আগে আসে। লাটভিয়া, আর্জেন্টিনা, ইরান এরাও খুবই কঠিন প্রতিপক্ষ। ভারতকে আমি কোচিং করিয়েছি। আমি তাদের সম্পর্কে জানি। সেই অভিজ্ঞতা থেকে বলছি- বাংলাদেশও ভালো করবে।’

রোল বল বিশ্বকাপের প্রথম আসর বসেছিল ২০১১ সালে। সেবার চ্যাম্পিয়ন হয় ডেনমার্ক। ২০১৩ এবং ২০১৫ সালের শিরোপাজয়ী দল ভারত। তৃতীয়বারের মত অংশ নেওয়া বাংলাদেশের সেরা অর্জন ছিল ২০১৫ সালে। ভারতের পুনেতে সেবার সপ্তম স্থানে থেকে আসর শেষ করে বাংলাদেশ।

এবার ঘরের মাঠে বিশ্বকাপ। চারদিক থেকে আরো ভালো কিছুর আওয়াজ উঠছে। সেই আওয়াজে মিশে আছে প্রথমবারের মত কোনো খেলায় বাংলাদেশকে বিশ্বকাপ ট্রফি এনে দেয়ার ‘প্রতিজ্ঞা’।

ছবি- সাকিব উল ইসলাম

রোল বল বিশ্বকাপ-২০১৭, বাংলাদেশ দলের প্রস্তুতি:

বিজ্ঞাপন